বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হামলার ঘটনায় আজ রোববার দুপুর পর্যন্ত কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।
কক্সবাজার সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) শাহীন মো. আব্দুর রহমান চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, সুজাউদ্দিনের গলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।


আজ দুপুরে নিজের বাড়িতে সাংবাদিক সুজাউদ্দিন রুবেল প্রথম আলোকে বলেন, গতকাল দিবাগত রাত সোয়া ১২টার দিকে তিনি সার্কিট হাউস সড়কে অবস্থিত দৈনিক কক্সবাজার পত্রিকার কার্যালয়ে কাজ শেষ করে হেঁটে বাড়ি ফিরছিলেন। জেলা পরিষদ কার্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনের সড়কে পৌঁছালে আগে থেকে অপেক্ষমাণ চার যুবক তাঁকে (সুজাউদ্দিন) পেছন থেকে জাপটে ধরে এবং গলা টিপে ধরেন। একপর্যায়ে সুজাউদ্দিন মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তাঁরা পালিয়ে যান। পরে মোহাম্মদ ঈসমাইল নামের একজন পথচারী সুজাউদ্দিনকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় নিয়ে যান। এরপর তাঁকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সুজাউদ্দিনের অভিযোগ, তাঁকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। দুর্বৃত্তরা তাঁকে গলা টিপে ধরে রাস্তায় ফেলে রেখে শুধু দুটো মুঠোফোন নিয়ে গেছে। কিন্তু তাঁর পকেটে থাকা নগদ ২৪ হাজার টাকা, হাত ব্যাগের মালামাল ও হাতঘড়ি রেখে গেছে। এর আগেও তিনি টেকনাফে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের হামলায় আহত হয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন।


মোহাম্মদ ঈসমাইল নামের ওই পথচারী বলেন, ‘আমরা কয়েকজন জেলা পরিষদের পশ্চিম পাশে (প্রেসক্লাবের সামনে) দোকানে বসে চা খাচ্ছিলাম। ওই সময় চার যুবককে হঠাৎ পালিয়ে যেতে দেখা গেছে। এরপর দোকান থেকে বের হয়ে দেখি কিছু দূরে একজন মাটিতে পড়ে আছেন। পরে তাঁকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যাই।’

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুম খান বলেন, সড়কে লাগানো ক্লোজড সার্কিট (সিসি) ক্যামেরার ফুটেজ অনুসন্ধান করে হামলাকারীদের ধরতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।


কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু তাহের বলেন, হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করা না হলে সাংবাদিক ইউনিয়ন কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে। সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে তিনি জানান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন