জানা যায়, সোমবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের কোনাগাঁও গ্রামের মাসুক মিয়া একটি লজ্জাবতী বানর তাঁর বাড়ির আঙিনায় দেখতে পেয়ে বানরটিকে ধরে লোহার খাঁচায় আটকে রাখেন। পরে মৌলভীবাজারের বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ ও কমলগঞ্জ জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটিকে খবর দেন। খবর পেয়ে মৌলভীবাজারের বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ ও কমলগঞ্জ জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সদস্যরা দুপুর ১২টার দিকে লজ্জাতী বানরটিকে উদ্ধার করেন। বানরটি অসুস্থ থাকায় চিকিৎসার জন্য এটিকে কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া রেসকিউ সেন্টারে নিয়ে রাখা হয়।

আজই ইসলামপুর ইউনিয়নের চাম্পারায় চা-বাগান বস্তি এলাকা থেকে উদ্ধার হওয়া আরেকটি লজ্জাবতি বানর কুরমা বনবিটের কলাবন এলাকায় অবমুক্ত করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন লাউয়াছড়া বন রেঞ্জ কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম, কমলগঞ্জ জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আহাদ মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক সজীব দেবরায়, দপ্তর সম্পাদক সালাহ্উদ্দিন, গণসংযোগ সম্পাদক মৃন্ময় পাল প্রান্ত, সদস্য চঞ্চল গোয়ালা, সঞ্জিত পাশী, বনপ্রহরী সুব্রত সরকার প্রমুখ।

লাউয়াছড়া রেঞ্জ কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম বলেন, উদ্ধার হওয়া লজ্জাবতী বানরটি অসুস্থ এবং খুবই দুর্বল। বানরটিকে চিকিৎসার জন্য লাউয়াছড়া রেসকিউ সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সুস্থ হলেই বানরটিকে বনে অবমুক্ত করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন