পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে তিনজন বাবুর্চি উপজেলার বাণীগ্রাম ইউনিয়নের গাছবাড়ি বাজারের আনন্দ কমিউনিটি সেন্টারে বিয়ে উপলক্ষে রান্না করার জন্য আসেন। রান্নার যাবতীয় প্রস্তুতি শেষে রাতে তাঁরা একটি কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। সকালে এ সেন্টারে বিয়ের অনুষ্ঠান ছিল। রান্নার প্রস্তুতির খবর নিতে আজ সকালে যখন অন্যরা এসে ওই কক্ষে বাবুর্চিদের কোনো সাড়াশব্দ পাচ্ছিলেন না, তখন পুলিশে খবর দেন।

পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই কক্ষের দরজা ভেঙে উপজেলার নয়াগ্রামের বাসিন্দা সুহেল আহমদ ও সালমা বেগম নামের দুই বাবুর্চির লাশ উদ্ধার করে। এ ছাড়া গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় বিল্লাল হোসেন (২৫) নামের আরেক বাবুর্চিকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ওসমানী হাসপাতালে পাঠায়।

কানাইঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জাহিদুল হক প্রথম আলোকে বলেন, যাঁরা মারা গেছেন, তাঁরা রাতের বেলা গরুর মাংস দিয়ে ভাত খেয়ে ঘুমিয়েছিলেন। যে কক্ষে তাঁরা ঘুমিয়েছেন, সেখানে ভেন্টিলেটরও ছিল না। ফলে ওই কক্ষে পর্যাপ্ত বাতাসও ঢোকেনি। মারা যাওয়ার আগে তাঁরা বমিও করেছেন। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, তাঁদের শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা কমে গিয়েছিল ও খাদ্যে বিষক্রিয়া হয়েছিল। তবে তাঁদের মৃত্যুর প্রকৃত কারণ পুলিশ বের করার চেষ্টা করছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন