default-image

৮ এপ্রিল থেকে করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ায় সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এর মধ্যেই টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া চলবে। লকডাউন কার্যকর করতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে সারা দেশের জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের চিঠি দেওয়া হয়েছে। সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে প্রচার-প্রচারণা চলছে।

আজ সোমবার বেলা ১১টার দিকে মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালের করোনা ইউনিট পরিদর্শন শেষে সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম এসব কথা বলেন।

খুরশীদ আলম বলেন, লকডাউনের সময় সবাইকে সরকারি নির্দেশনা মানতে হবে। যাঁরা এই নির্দেশনা অমান্য করবেন, তাঁদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া বিষয়ে ঘোষণা দেওয়া আছে। একটি কথা মানতে হবে, ‘দেশের মানুষকে করোনা থেকে রক্ষা করতেই এই লকডাউন দেওয়া হয়েছে। কাজেই লকডাউন কার্যকর করতে আমাদের অবশ্যই সচেতন হয়ে সরকারি নির্দেশনাগুলো মানতে হবে।’

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ‘মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতাল পরিদর্শন করা হয়েছে। করোনা ইউনিটের সেন্ট্রাল অক্সিজেন রয়েছে, সেখানে করোনা ইউনিট স্থাপন করা হবে। ওখানে সাতটি বেড আমরা নির্বাচন করেছি। বর্তমানে এই সাতটি বেডে সাধারণ রোগী রয়েছে। তাদের অন্যত্র সরিয়ে এখানে করোনা ইউনিট, সেন্ট্রাল অক্সিজেন সরবরাহ, হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা ব্যবহার করতে পারে। মোট কথা একটি আইসিইউতে যে সুবিধাগুলো থাকে, সে ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবারের (৮ এপ্রিল) মধ্যে যেন এটি চালু হয়।’

পরিদর্শনের সময় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) হাসান ইমাম, পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিক) ফরিদ মিঞা এবং পরিচালক (হাসপাতাল সার্ভিস) খুরশীদ আলম, মানিকগঞ্জের সিভিল সার্জন আনোয়ারুল আমিন আখন্দ, জেলা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক মো. আরশ্বাদ উল্লাহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন