বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মশিউর রহমান সভাপতিত্ব করেন। উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ স্কাউটের প্রধান জাতীয় কমিশনার ও দুর্নীতি দমনের কমিশনার মো. মোজাম্মেল হক খান, জেলা প্রশাসক এস এম তরিকুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্বিবদ্যালয়ে উপাচার্য গিয়াসউদ্দিন মিয়া, টঙ্গী সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মো. রফিকুল ইসলামসহ স্কাউটসের ঊর্ধ্বতন কর্মকতারা।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আশা করি, এখন যেভাবে টিকাদান কর্মসূচি চলছে, তাতে শিগগিরই আমাদের ১২ বছর বয়সী যারা রয়েছে, তাদের বেশির ভাগই টিকা দেওয়া হয়ে যাবে। যত দ্রুত সম্ভব সবাই টিকার আওতায় গিয়ে তারা ক্লাসে ফিরে আসবে। তবে তাদের অনলাইন ও টেলিভিশনে ক্লাসে অংশগ্রহণের সুযোগও চলমান আছে।’

দীপু মনি আরও বলেন, ‘আমাদের ঝুঁকি নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি আমাদের গুরুত্বের সঙ্গে ভাবতেই হবে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট অফিস নিয়মিতভাবে এ বিষয়টি দেখাশোনা করছে। এখন আমাদের শিক্ষক, শিক্ষার্থী অনেক সচেতন। এখন যেহেতু সংক্রমণ বাড়ছে, তাই আমাদের মধ্যে এ বিষয়ে আরও সচেতনতা বাড়াতে হবে। যদিও মাঝখানে আমরা একটু ঢিলেমি দিয়েছি। কিন্তু এখন সেটির আর সুযোগ নেই।’

অনুষ্ঠান শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন