default-image

তৃতীয় লিঙ্গের দুজনের পুনর্বাসনের জন্য নরসিংদীর মাধবদীতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি রূপচর্চাকেন্দ্র (পারলার) করে দেওয়া হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে মাধবদী পৌর শহরের বড় মসজিদ রোডের ইসলাম প্লাজায় ‘ত্রিনয়ন রূপশিল্প’ নামের এই কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন।

যে দুজনকে এই রূপচর্চাকেন্দ্র গড়ে দেওয়া হয়েছে, তাঁরা হলেন রত্না শেখ ও মীম আক্তার। রত্না শেখের বাড়ি মুন্সিগঞ্জের কাচারি থানার বাংলাবাজার গ্রামে। অন্যদিকে মীম আক্তারের বাড়ি নরসিংদীর মাধবদীর বানিয়াদী গ্রামে। তাঁরা দুজনই ভারতে গিয়ে আধুনিক রূপচর্চাশিল্পে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১১ বছর আগে সামাজিক ও পারিবারিকভাবে নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়েছিলেন মীম আক্তার। সে সময় তিনি কাজের উদ্দেশ্যে দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়ে প্রতারিত হয়ে কিছুদিনের মধ্যেই আবার দেশে ফিরে আসেন। সামাজিক ও পারিবারিক বঞ্চনা সহ্য করতে না পেরে তিনি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার আগে ভারতে গিয়ে আধুনিক রূপচর্চা বিষয়ে প্রশিক্ষণ নেন। সেখানেই তাঁর পরিচয় হয় রত্না শেখের সঙ্গে। প্রশিক্ষণ শেষে করোনার কারণে সেখানে আটকে যান তাঁরা। সম্প্রতি রত্নাকে সঙ্গে নিয়ে মীম আক্তার নরসিংদীর মাধবদীতে নিজ বাড়িতে ফিরে এলে সামাজিক ও পারিবারিক দুঃখদুর্দশা আরও বেড়ে যায়।

তৃতীয় লিঙ্গের ব্যক্তিদের পুনর্বাসন করতে সরকারি অর্থায়নে প্রতিষ্ঠিত প্রথম রূপচর্চাকেন্দ্র এটি। পর্যায়ক্রমে সবাইকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিভিন্ন কর্মসংস্থানের আওতায় আনা হবে।
সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন, জেলা প্রশাসক, নরসিংদী
বিজ্ঞাপন

রত্না শেখ ও মীম আক্তার জানান, দুঃখ-দুর্দশার বর্ণনা দিয়ে তাঁরা মাধবদীর স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করে সহযোগিতা চান। পরে মাধবদী থানা প্রেসক্লাবের সভাপতি আল আমিন সরকার বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসলিমা আক্তার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহ আলম মিয়াকে জানান। এ দুই কর্মকর্তার মাধ্যমে বিষয়টি জেনে তাঁদের কর্মসংস্থান তৈরির জন্য এই রূপচর্চাকেন্দ্র গড়ে তোলার নির্দেশ দেন জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন।

default-image

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাছলিমা আক্তার, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. শাহ আলম মিয়া, সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম ৭১–এর সভাপতি মোতালিব পাঠান, নরসিংদী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি আলী হোসেন, নরসিংদী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল পারভেজ ও মাধবদী থানা প্রেসক্লাবের সভাপতি আল আমিন সরকার।

এ সময় অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে মীম আক্তার বলেন, পরিবার থেকে শুরু করে সবখানেই ছিল শুধু অবহেলা আর অবহেলা। সবচেয়ে খারাপ লাগার বিষয় ছিল নিজের পরিবারের অবহেলা। ভারতে গিয়ে রূপচর্চার কাজ শিখেও কাজ পাচ্ছিলেন না। এখন নিজেরা কাজ করে উপার্জন করতে পারবেন। আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেওয়ায় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

জেলায় মোট ২০২ তৃতীয় লিঙ্গের ব্যক্তি রয়েছেন জানিয়ে জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন বলেন, তৃতীয় লিঙ্গের ব্যক্তিদের পুনর্বাসন করতে সরকারি অর্থায়নে প্রতিষ্ঠিত প্রথম রূপচর্চাকেন্দ্র এটি। পর্যায়ক্রমে সবাইকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিভিন্ন কর্মসংস্থানের আওতায় আনা হবে। সমাজে অবহেলিত এই তৃতীয় লিঙ্গের ব্যক্তিদের মানুষ বিবেচনায় সার্বিক সহযোগিতা করার জন্য সমাজের সর্বস্তরের মানুষের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন