default-image

ছেলের মোটরসাইকেলের পেছনে বসে কর্মস্থলে যাচ্ছিলেন বাবা। কারখানা থেকে মাত্র কয়েক শ মিটার দূরে একটি দ্রুতগামী ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংর্ঘষ হয়। ঘটনাস্থলেই মারা যান ছেলে। বাবার অবস্থাও আশঙ্কাজনক। ভর্তি আছেন হাসপাতালে। গতকাল রোববার রাত ১০টায় কুষ্টিয়া–ঝিনাইদহ মহাসড়কের বটতৈল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ছেলের নাম মেহেদী হাসান শান্ত (২৫)। পুলিশ তাঁর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। তাঁর বাবা শরিফ উদ্দীন একই হাসপাতালের ১০ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। তাঁদের বাড়ি কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পাটিকাবাড়ি ইউনিয়নের নলকোলা গ্রামে। বাবা ও ছেলে বটতৈল এলাকার কেএনবি অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজের কর্মচারী।

বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, রাত সাড়ে নয়টার দিকে বাড়ি থেকে বাবা ও ছেলে মোটরসাইকেলে কারখানায় কাজে যাচ্ছিলেন। রাত ১০টার দিকে বটতৈল এলাকায় কারখানা থেকে কয়েক শ মিটার দূরে পৌঁছালে একটি দ্রুতগামী ট্রাকের সঙ্গে তাঁদের মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মেহেদী মারা যান। স্থানীয় ব্যক্তিরা গুরুতর আহত অবস্থায় শরিফ উদ্দীনকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান। সেখানে অস্ত্রোপচার কক্ষে নিয়ে অস্ত্রোপচারের পর তাঁকে ১০ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ছেলের লাশের ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে। তবে চালক পালিয়ে গেছেন।

মন্তব্য পড়ুন 0