বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সংবাদ সম্মেলনে এ বি এম সিদ্দিকুর রহমান লিখিত বক্তব্যে বলেন, শনিবার রাতে তাঁর কর্মী-সমর্থকেরা উপজেলার সন্দুরীঘাট স্কুলমাঠে নির্বাচনের প্রচারণা চালাচ্ছিলেন। রাত সাড়ে ১০টার দিকে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ওবায়দুল হক ভূঁইয়া ও সিরাজুল হকের লোকজন একত্র হয়ে আকস্মিক হামলা চালান। এ সময় তাঁর কর্মী-সমর্থকেরা দৌড়ে পালাতে গিয়ে চারজন আহত হন। পরে তাঁরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নেন। হামলাকারীরা আওয়ামী লীগের এক কর্মীর মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেন। সিদ্দিকুর রহমান দাবি করেন, প্রতীক বরাদ্দ হওয়ার পর থেকেই প্রতিদ্বন্দ্বী ওবায়দুল হক ও সিরাজুল হক একত্র হয়ে তাঁর বিরুদ্ধে নেমেছেন। বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করছেন। এ ব্যাপারে তিনি থানায় অভিযোগ দিয়েছেন।

তবে ওবায়দুল হক ভূঁইয়া বলেন, ‘আমার কোনো কর্মী-সমর্থক কারও ওপর হামলা বা মোটরসাইকেলে আগুন দেননি। এগুলো সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। উল্টো নৌকার সমর্থকেরা বিভিন্ন স্থানে টানানো আমার পোস্টার ছিঁড়ে ফেলছেন। প্রচারে বাধা দিচ্ছেন।’ আর ফোন না ধরায় সিরাজুল হক চান মিয়া দেওয়ানির সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

কলমাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল আহাদ খান বলেন, শনিবার রাতে হামলার খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন