উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ও লেঙ্গুড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. সাইদুর রহমান ভূঁইয়া মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালান। হামলায় উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুল মতিন, উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক মো. চন্দন মিয়া, কলমাকান্দা ইউনিয়ন যুবদলের আহ্বায়ক মো. আলমগীর হোসেন, যুবদল নেতা আশরাফুল ইসলাম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আরাফাত রহমান, ছাত্রদলের সদস্যসচিব শেখ রবিন, ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হৃদয় হাসান, খারনৈ ইউনিয়ন যুবদলের সহসভাপতি তমাল মিয়া, মো. আরাফাতসহ ১৫ থেকে ২০ জন আহত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ১০ জনকে কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যরা স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা চন্দন বিশ্বাসের মুঠোফোন একাধিকবার যোগাযোগ করেও বন্ধ পাওয়া যায়। তবে যুবলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক পলাশ বিশ্বাস হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ বা ছাত্রলীগের কোনো নেতা-কর্মী বিএনপির কোনো নেতা-কর্মীর ওপর হামলা করেননি। এটা একেবারে মিথ্যা অভিযোগ দেওয়া হচ্ছে। তবে যতটুকু শুনেছি, বিএনপির নিজেদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে নিজেরাই নিজেদের নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা চালিয়ে সরকারি দলের ওপর দোষ চাপাচ্ছে। এটা রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ছাড়া কিছুই না। আওয়ামী লীগ হিংসা বা সন্ত্রাসের রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

কলমাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আবদুল আহাদ খান প্রথম আলোকে বলেন, উপজেলার ধানমহাল এলাকায় একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনার কথা তিনি শুনেছেন। তবে এ নিয়ে থানায় কেউ অভিযোগ করেননি। তিনি বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখছেন বলে জানান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন