default-image

পটুয়াখালীর কলাপাড়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ–মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন ও নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট করার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শুক্রবার রাত আটটার দিকে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী দিদার উদ্দিন আহমেদ মাসুম তাঁর ব্যক্তিগত কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এই অভিযোগ করেন।

দিদার উদ্দিন আহমেদ আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে কলাপাড়া পৌরসভা নির্বাচনে জগ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। তিনি কলাপাড়া পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচন করায় দল থেকে তাঁকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে দিদার উদ্দিন আহমেদ বলেন, তিনি প্রতীক পাওয়ার পর থেকেই নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বিপুল চন্দ্র হাওলাদারের কিশোর গ্যাং তাঁর নির্বাচনী প্রচারকাজে নানাভাবে বাধা দিচ্ছে। ৩ ফেব্রুয়ারি থেকে বিপুল চন্দ্র হাওলাদার অসংখ্য বহিরাগত সন্ত্রাসী ভাড়া করে কলাপাড়ায় নিয়ে এসেছেন। প্রতিদিনই মোটরসাইকেলে কলাপাড়া পৌর শহরের বিভিন্ন রাস্তায় মহড়া করে বেড়াচ্ছে তারা। এতে ভোটারদের মনে ব্যাপক শঙ্কা কাজ করছে। তিনি আরও বলেন, ‘শুক্রবার বিকেল চারটার সময় রাকিবুল ইসলামসহ চার থেকে পাঁচজন মিলে ওয়াপদা সড়ক এলাকায় আমার স্ত্রী হাসিনা আক্তারসহ পরিবারের পাঁচ সদস্যকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেছে। হাত-পা কেটে পঙ্গু করে ফেলার হুমকি দিয়েছে তারা। লিফলেট, স্টিকার ছিনিয়ে নিয়ে রাস্তায় ফেলে দিয়েছে। আমার স্ত্রীর মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছে। এমন পরিস্থিতিতে কলাপাড়া পৌর এলাকায় ভয় ও আতঙ্ক ছড়িয়েছে।’

বিজ্ঞাপন

অভিযোগের বিষয়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিপুল চন্দ্র হাওলাদার বলেন, ‘রাকিব নামে আমার কোনো কর্মী নেই। তাঁকে আমি চিনিও না। তা ছাড়া আমার কোনো কর্মী কারও নির্বাচনী কাজে বাধা দিচ্ছে না।’

এ বিষয়ে কলাপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে পুলিশের একটি ভ্রাম্যমাণ দলকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়। তবে সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি। তা ছাড়া কেউ কোনো অভিযোগ দিলে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট কেউ করতে পারবে না।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন