কলেজ ও বিদ্যালয় মিলিয়ে একটি খেলার মাঠ। মাঠের এক পাশে ময়লা-আবর্জনার বিশাল স্তূপ। সেখান থেকে উড়ছে মাছি, মশা। বাতাসে ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ। মাঠে খেলতে আসা শিশু-কিশোর উষ্মা প্রকাশ করছেন। নাক চেপে মাঠের পাশ দিয়ে চলাচল করছেন পথচারী ও সাধারণ বাসিন্দারা।
গাজীপুরের টঙ্গী সরকারি কলেজ ও সফিউদ্দিন সরকার একাডেমি অ্যান্ড কলেজ মাঠের এ চিত্র গতকাল রোববার সকালের। করোনার প্রাদুর্ভাবে গত ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দুটি বন্ধ। নেই শিক্ষক-শিক্ষার্থী বা অন্যান্য মানুষের সমাগম। সেই সুযোগে মাঠের এক পাশ দখল করে করা হয়েছে ময়লার ভাগাড়। সেই ভাগাড় থেকে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে চারপাশে। ভোগান্তিতে পড়ছেন মাঠে খেলতে আসা শিশু-কিশোর, পথচারী বা সাধারণ বাসিন্দারা।

বিজ্ঞাপন

কলেজ কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, করোনার বন্ধের সুযোগে মাঠের এক পাশ দখল করে ময়লাগুলো ফেলছেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের লোকজন। ময়লাগুলো ফেলা হচ্ছে কোরবানি ঈদের দু-এক দিন আগ থেকে। শুরুতে সাময়িক অসুবিধা বা দু-এক দিনের জন্য ময়লাগুলো রাখার কথা বলা হলেও এখনো তা সরানো হয়নি। এ নিয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষ বা স্থানীয় বাসিন্দারা একাধিকবার জনপ্রতিনিধি বা সিটি করপোরেশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করলেও কোনো সুরাহা হয়নি।
কলেজের অধ্যক্ষ মো. রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, কলেজ মাঠে ময়লার এ দৃশ্য খুবই দৃষ্টিকটু। এতে কলেজের পরিবেশ নষ্টের পাশাপাশি দুর্গন্ধে ভোগান্তিতে পড়ছেন আশপাশের লোকজন। মাঠে শিশু-কিশোরেরা খেলাধুলা করতে পারছে না। এ নিয়ে স্থানীয় কাউন্সিলরের সঙ্গে একাধিকবার কথা হয়েছে। কিন্তু কোনো সমাধান হয়নি।

গতকাল সকালে সরেজমিনে দেখা যায়, মাঠটি টঙ্গী সরকারি কলেজ ও সফিউদ্দিন সরকার একাডেমি অ্যান্ড কলেজের সামনে। মাঠের পূর্ব পাশে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক। ময়লার ভাগাড়টি করা হয়েছে মাঠের উত্তর-পূর্ব কোণে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশ ঘেঁষে। সেখানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে বিভিন্ন ধরনের কাগজ, পলিথিন, ডাবের খোসা, পচা খাবার, পচা সবজিসহ বিভিন্ন ধরনের আবর্জনা। এসব আবর্জনা থেকে মাছি ও মশা উড়ছে। একটু বাতাস এলেই দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে আশপাশে। এতে পথচারী বা স্কুল-কলেজে আসা ব্যক্তিরা মুখ ও নাক চেপে ধরে হাঁটছেন।

বিজ্ঞাপন

টঙ্গী সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি কাজী মঞ্জুর বলেন, ‘কলেজে এখন একাদশ শ্রেণির ভর্তি কার্যক্রম চলছে। প্রতিদিনই শিক্ষার্থীরা আসছে। এর মধ্যে এই ময়লার ভাগাড় দেখে অনেকেই বিরক্ত হচ্ছে, কলেজ সম্পর্কে ভ্রান্ত ধারণা হচ্ছে। এ নিয়ে প্রিন্সিপাল স্যারসহ আমরা একাধিকবার স্থানীয় কাউন্সিলর বা সিটি করপোরেশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছি। কিন্তু তাতে কোনো লাভ হয়নি।’
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মাঠটি পড়েছে সিটি করপোরেশনের ৫৪ নম্বর ওয়ার্ডে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. নাসির মোল্লা বলেন, ‘এটা একটা নতুন সিটি করপোরেশন। ময়লা ফেলার কোনো নির্দিষ্ট জায়গা নেই। এ ছাড়া এই ময়লাগুলো ফেলা হয়েছে বিভিন্ন বাসাবাড়ি থেকে। এটা নিয়ে আমরা কাজ করছি। আগামী দু-এক দিনের মধ্যেই মাঠ পরিষ্কার হয়ে যাবে।’

মন্তব্য পড়ুন 0