বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ৫ অক্টোবর উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়নের গনকমুড়া গ্রামের ইকবাল হোসেনের মেয়ে কারিমা আক্তারের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী বিষ্ণাউড়ী গ্রামের দুলাল মিয়ার ছেলে পারভেজ মিয়ার বিয়ে হয়। বিয়ের দিন দই খাওয়া নিয়ে বরপক্ষের সঙ্গে কনেপক্ষের কথা-কাটাকাটি হয়। পরদিন রাতে গনকমুড়ায় এক চায়ের দোকানের সামনে ইকবাল হোসেনকে বিষ্ণাউড়ী গ্রামের মান্নাফ ও হান্নান সর্দারসহ তাঁদের লোকজন দুই দফা হামলা করে গুরুতর জখম করেন। এরপর আহত ইকবালকে হাসপাতাল নিয়ে যাওয়ার সময় পথরোধ করেন হামলাকারীরা।

পরে গোপীনাথপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হরমুজ আলীর সহযোগিতায় ইকবালকে কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানকার চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পরদিন ৭ অক্টোবর পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

এ ঘটনায় নিহত ইকবালের স্ত্রী জ্যোৎস্না বেগম ১৭ জনকে আসামি করে কসবা থানায় একটি হত্যার অভিযোগ করলেও পুলিশ ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন আসার কথা বলে অভিযোগটি মামলা হিসেবে গ্রহণ করেনি। এ ঘটনায় প্রথম আলোতে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। পরে জ্যোৎস্না বেগম ব্রাহ্মণবাড়িয়া আদালতে আবেদন করেন। ২১ অক্টোবর এ বিষয়ে আদালতে শুনানি হয়। শুনানি শেষে বিচারক মামলা নেওয়ার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন