বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খিজির হায়াত খান বলেন, ‘অপরাজনীতির হোতা কাদের মির্জা গত তিন মাসে কোম্পানীগঞ্জের রাজনীতিকে কলুষিত করেছেন। সর্বশেষ গতকাল শুক্রবার বিকেলে ফেসবুক লাইভে এসে কাদের মির্জা আমাদের নেতা ও স্থানীয় সাংসদ ওবায়দুল কাদেরকে কোম্পানীগঞ্জে আসতে না দেওয়ার মতো ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য রেখেছেন। এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। তাই আমরা অবিলম্বে কাদের মির্জাকে গ্রেপ্তার করে পাগলাগারদে পাঠানোর দাবি জানাচ্ছি।’

ওবায়দুল কাদেরের ভাগনে মাহবুবুর রশিদ সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের এই এলাকার সংসদ সদস্য। তিনি এই এলাকায় তো আসবেনই। বরং আমরা আবদুল কাদের মির্জাকে প্রতিহত করব।’

গত বৃহস্পতিবার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বসুরহাটে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি থানার সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় প্রথমে পুলিশ ধাওয়া করে। পরে কাদের মির্জার ছেলে তাসিক মির্জার নেতৃত্বে মিছিলে হামলা হয়। এ নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত হন তাসিক মির্জাসহ কমপক্ষে ১৫ জন। পরে রাতে কাদের মির্জার অনুসারীরা বসুরহাট বাসস্ট্যান্ডে তিনটি বাস ভাঙচুর করেন।

এ ঘটনার পরের দিন শুক্রবার বিকেল চারটার দিকে কাদের মির্জা ফেসবুক লাইভে ওবায়দুল কাদেরকে কোম্পানীগঞ্জে আসতে না দেওয়ার ঘোষণা দেন। এ ঘটনার প্রায় সোয়া ছয় ঘণ্টার মাথায় শুক্রবার রাত সোয়া ১০টার দিকে ওবায়দুল কাদেরের বাড়ির সামনে ছোট ভাই শাহদাত হোসেনকে লক্ষ্য করে ককটেল হামলার ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ ওঠে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন