default-image

মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলায় পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় ১৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ শনিবার সকালে কালকিনির বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়। দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে আদালতের বিচারক সাইদুর রহমান তাঁদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ৩১ মার্চ কালকিনি পৌরসভার নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। পৌরসভার ঠ্যাঙ্গামারা এলাকায় ২ এপ্রিল নৌকা প্রতীকের বিজয়ী প্রার্থী এস এম হানিফের সমর্থকদের সঙ্গে পরাজিত বিদ্রোহী প্রার্থী সোহেল রানার সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনার সময় পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। এতে পুলিশের দুই সদস্য আহত হন। এ সময় পুলিশের গাড়িতে ইট-পাটকেল ছোড়া হয়। উভয় পক্ষের সমর্থকেরা একাধিক হাতবোমার বিস্ফোরণও ঘটান। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ২০টি ফাঁকা গুলি ছোড়ে। পরে ঘটনাস্থল থেকে ১৩টি ককটেলসহ বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার রাতে কালকিনি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সৈয়দ হাসিব আহম্মদ বাদী হয়ে ৬৩ জনের নামে মামলা করেন। এ ছাড়া মামলায় অজ্ঞাতনামা আর ১০০–১৫০ জনকে আসামি করা হয়। মামলার পর আজ সকালে কালকিনির বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ১৫ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মাদারীপুরের কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইশতিয়াক আশফাক রাসেল বলেন, পুলিশের ওপর হামলা, সরকারি কাজে বাধা ও সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করার ঘটনায় করা মামলায় ১৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের ধরতে অভিযান চলছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন