default-image

‘নৌকায় ভোট না করলে ঘরে ঘুমানো যাবে না’ এমন বক্তব্য দেওয়া আওয়ামী লীগের সেই নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠিয়েছে নির্বাচন কমিশন। রোববার বিকেলে মাদারীপুর জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান প্রথম আলোকে এ তথ্য জানিয়েছেন। নির্বাচন কমিশন তিন দিনের মধ্যে এই বক্তব্যের ব্যাখ্যা জানতে চেয়েছে।

ওই নেতার নাম বেলাল হোসেন সরদার। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক এবং আওয়ামী লীগের প্রার্থী এস এম হানিফের সমর্থক হিসেবে বিভিন্ন এলাকায় নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণার কাজে নিয়োজিত আছেন।

নির্বাচনের আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালানো আওয়ামী লীগের এই নেতা গত বৃহস্পতিবার বিকেলে কালকিনি পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম পাঙ্গাসিয়া এলাকায় উঠান বৈঠকে ভোটারদের উদ্দেশে বক্তব্য দেন। এই বক্তব্যের একটি অংশে তিনি বলেন, ‘এখানে যাঁরা নৌকার বিরুদ্ধে (ভোট) করেন, আপনাদের কাছে অনুরোধ রেখে গেলাম, আগামী দুই-এক দিনের ভেতর যদি আপনারা পরিবর্তন হয়ে নৌকা মার্কায় নির্বাচন করেন দেশের স্বার্থে, তাহলে ভালোভাবে থাকতে পারবেন। আর না করলে ঘরে ঘুমানোর কোনো সুযোগ নেই।’

বিজ্ঞাপন

আওয়ামী লীগ নেতা বেলাল হোসেনের ৩৩ সেকেন্ডের এই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে তিনি আরও বলেন, ‘যাঁরা অভিভাবক আছেন, তাঁদের অনুরোধ করে বলি, পায়ে হাত দিয়ে বলি, এই নৌকা মার্কার ঐতিহ্য রক্ষার্থে, শেখ হাসিনার ঐতিহ্য রক্ষার্থে, আমাদের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকা প্রতীকে ভোট দিতে হবে।’

এ ঘটনায় শনিবার প্রথম আলোয় ‘নৌকায় ভোট না করলে ঘরে ঘুমানো যাবে না’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

এ ব্যাপারে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, ‘প্রথম আলোর প্রকাশিত প্রতিবেদনে দুজন নেতার বক্তব্যের কথা বলা হয়। তবে এখানে নির্বাচনী প্রচারণায় উসকানিমূলক বক্তব্য প্রদান ও আচরণবিধি সুস্পষ্ট লঙ্ঘন করেছেন বেলাল হোসেন। আমরা তাঁকে শোকজ করেছি। তিন দিনের মধ্যে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে। তিনি বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিতে না পারলে তাঁর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এ ব্যাপারে বেলাল হোসেন সরদার বলেন, ‘আমি কোনো শোকজ নোটিশ পাইনি। তা ছাড়া আমার বক্তব্যের ভিডিওটি ভুলভাবে প্রচার করা হয়েছে। তাই কমিশনে কী ব্যাখ্যা দেব, সেই বিষয়ে এখনো কিছু সিদ্ধান্ত করা হয়নি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন