বিজ্ঞাপন

নিহত দুজন হলো সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার শ্রীউলা ইউনিয়নের নাসিমাবাদ গ্রামের আবদুল হামিদ মোড়লের ছেলে ও মাড়িয়ালা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী তৌহিদুল ইসলাম (১৬) এবং একই গ্রামের সাঈদ মোড়লের ছেলে ও একই স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্র রিয়াজ মোড়ল ওরফে শাহীন (১৫)।

মোটরসাইকেলের আহত চালকের নাম গোলাম রসুল ওরফে লিটন (২৬)। তিনি আশাশুনি উপজেলার বিছট গ্রামের ফজর মোল্লার ছেলে। তাঁকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন গোলাম রসুল বলেন, তিনি শ্যামনগরে এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে মোটরসাইকেলে তৌহিদ ও রিয়াজকে নিয়ে শনিবার দুপুরে কালীগঞ্জের কাঁকশিয়ালী সেতুর নিচ দিয়ে তাঁদের বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে গোলখালী শ্মশানের পাশে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তাঁদের মোটরসাইকেলটির একটি বাবলাগাছের সঙ্গে সজোরে ধাক্কা লাগে। এতে তাঁরা তিনজন গুরুতর জখম হন। স্থানীয় লোকজন তাঁদের তিনজনকে উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তৌহিদ ও রিয়াজকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

কালীগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মিজানুর রহমান বলেন, মরদেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বিকেলে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছিল। সেখানে আজ ময়নাতদন্ত না হওয়ায় মরদেহ সাতক্ষীরা সদর থানায় এনে রাখা হয়েছে। কাল রোববার সেগুলোর ময়নাতদন্ত হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন