বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

খন্দকার রবিউল ইসলাম জানান, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা তৈয়েবুর রহমানের অভিযোগের ভিত্তিতে রেজাউল ইসলাম ও তাঁর স্ত্রী রিমা আক্তারের চেম্বারে অভিযান চালানো হয়। এই দম্পতি চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে চেম্বার খুলে সাধারণ মানুষকে চিকিৎসার নামে ঠকিয়ে আসছিলেন।

অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় রেজাউল করিমকে এক লাখ টাকা, অনাদায়ে দুই মাসের কারাদণ্ড এবং তাঁর স্ত্রীকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। তবে ঘটনাস্থলেই ভুয়া ডাক্তার দম্পতি দেড় লাখ টাকা জরিমানা পরিশোধ করেন।

অভিযানের সময় উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা তৈয়েবুর রহমান ও কালীগঞ্জ থানার সহকারী উপপরিদর্শক মফিজুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। এ সময় ওই দম্পতির চেম্বার থেকে একটি অ্যানালাইজার মেশিন ও ডাক্তার লেখা সাইনবোর্ড জব্দ করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন