বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চিকিৎসক সুব্রত সাহা বলেন, প্রতিদিনের মতো তিনি বিকেলে ঘুরতে বের হয়েছিলেন। সন্ধ্যার দিকে কাশিয়ানী বাসস্ট্যান্ড থেকে কাঁচাবাজার করে ওই সড়ক দিয়ে বাসায় ফিরছিলেন। এ সময় পাঁচ-সাতজন যুবক একটি মাইক্রোবাস থেকে নামে। তারা অতর্কিত তাঁর ওপর হামলা করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে। পরে তারা মাইক্রোবাসে করে পালিয়ে যায়।

সুব্রত সাহা আরও বলেন, স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে কাশিয়ানী হাসপাতালে নিয়ে আসেন। সেখানে কর্মরত চিকিৎসকেরা প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। তবে কী কারণে তাঁর ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে, তা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না এই চিকিৎসক।

কাশিয়ানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মুহাম্মদ ফিরোজ আলম বলেন, তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। প্রাথমিকভাবে হামলার ঘটনার কোনো কারণ জানা যায়নি।

কাশিয়ানী উপজেলা ১০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক তাপস বিশ্বাস বলেন, সুব্রত সাহার দুই হাতে কোপ লোগেছে। এ ছাড়া তাঁর পায়ের ডান ঊরুতে কোপানো হয়েছে। ঊরুর আঘাত গুরুতর। সেখান থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছে। এটি বন্ধ করা যায়নি। তাই আশঙ্কাজনক অবস্থায় রাত আটটার দিকে তাঁকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন