এ ঘটনায় ভুক্তভোগী কিশোরের মা বাদী হয়ে ফেনী মডেল থানায় ওই কনস্টেবলের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করেন।

মামলার সূত্রে জানা গেছে, ওই কিশোর শহরের একটি দোকানে চাকরি করত। গত ২৩ ডিসেম্বর রাতে দোকান বন্ধ করে বাড়িতে যাওয়ার সময় মহিপাল ফ্লাইওভারের নিচে পৌঁছালে পুলিশ সদস্য ইউনুস তার গতি রোধ করেন। তিনি অবৈধ মালামাল থাকার অভিযোগে ওই কিশোরকে আটক করেন। পরে তিনি তাকে থানায় না নিয়ে একটি আবাসিক হোটেলে নিয়ে যান। সেখানে তিনি ওই কিশোরকে নানা ধরনের ভয়-ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করেন। এরপরও তিনি তাকে একাধিক দিন ধর্ষণ করেন।

একপর্যায়ে তাকে একটি মুঠোফোন সেট উপহার দেন পুলিশ সদস্য ইউনুস। এরপর সেটি হারিয়ে গেছে মর্মে থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। পুলিশ ওই মুঠোফোন সেটটি উদ্ধার করলে ওই কিশোরের মা ঘটনার বিস্তারিত জানতে পারেন এবং এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে ফেনী সদর মডেল থানায় একটি মামলা করেন।

মামলার পর পুলিশ সদস্য ইউনুসকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। রাতে তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নিজাম উদ্দিন ইউনুসকে গ্রেপ্তার ও আদালতের মাধ্যমে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পুলিশ কনস্টেবল ইউনুসকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন