default-image

সিলেটে এক কিশোরীকে অপহরণের পর আটকে রেখে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ গতকাল শনিবার ওই কিশোরীকে উদ্ধারের পাশাপাশি ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে এক তরুণকে গ্রেপ্তার করেছে।
গ্রেপ্তার হওয়া তরুণের নাম রুবেল মিয়া (২৮)। তিনি পেশায় সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালক।

পুলিশ জানায়, ওই কিশোরী (১৫) গত বৃহস্পতিবার নানা বাড়িতে যাওয়ার জন্য নিজ বাড়ি থেকে রওনা হয়। পথে সিলেটের বিমানবন্দর এলাকায় দেখা হয় পূর্বপরিচিত অটোরিকশাচালক রুবেলের সঙ্গে। রুবেল তাঁকে নানাবাড়ি পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে গাড়িতে তুলে নেয়। কিন্তু সেখানে না নিয়ে গিয়ে দক্ষিণ সুরমা উপজেলার সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ–সংলগ্ন একটি কলোনিতে নিয়ে যান। সেখানে একটি বাড়িতে মেয়েটিকে আটকে রেখে একাধিকবার ধর্ষণ করেন রুবেল।

বিজ্ঞাপন

কিশোরীর পরিবারের লোকজন বিভিন্ন উপায়ে অপহরণকারী হিসেবে অটোরিকশাচালক রুবেলকে শনাক্ত করেন। তাঁর মুঠোফোন নম্বর সংগ্রহ করেন। তাঁরা ওই নম্বরে ফোন দিয়ে কৌশলে রুবেলকে বিমানবন্দর এলাকার কুরবান টিলা এলাকায় ডেকে নেন। রুবেল গতকাল বিকেলে ওই স্থানে উপস্থিত হলে তাঁকে আটক করে জাতীয় জরুরি সেবার ‘৯৯৯’ নম্বর ফোন দেন মেয়েটির স্বজনেরা। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে তাদের হাতে রুবেলকে তুলে দেওয়া হয়।

সিলেট বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান মো. মাঈনুল জাকির বলেন, কিশোরীর পরিবার গতকাল থানায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছে। ওই মামলায় রুবেল মিয়াকে আজ রোববার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য উদ্ধার হওয়া কিশোরীকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন