default-image

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলায় কিশোরীকে দল বেঁধে ধর্ষণ ও ধর্ষণের ভিডিও ধারণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ওই কিশোরীর বাবার করা মামলায় গতকাল শুক্রবার তিন যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার তিন যুবক হলেন কালিয়াকৈর উপজেলার কাথাচুড়া এলাকার মো. শরিফ (২৮), রামচন্দ্রপুর এলাকার রাশেদুল ইসলাম (২২) ও কড়ইতলী এলাকার রুবেল হাসান (২১)।

কিশোরীর পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে মো. শরিফ ষষ্ঠ শ্রেণির ওই ছাত্রীর মুঠোফোনে ফোন করে জানান, তাঁর মুঠোফোনে তার (ওই ছাত্রীর) ছবি আছে। সেই ছবি নিতে না এলে ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়া হবে। পরে ওই স্কুলছাত্রী ছবি নেওয়ার জন্য তাঁর কথামতো নির্জন স্থানে যাচ্ছিল। যাওয়ার পথেই শরিফ ও তাঁর দুই সহযোগী রাশেদুল ও রুবেল মেয়েটির মুখ চেপে ধরেন। পাশে একটি বাগানের ভেতরে নিয়ে পর্যায়ক্রমে তাঁরা কিশোরীকে ধর্ষণ করেন। সেই দৃশ্য তাঁদের মুঠোফনে ধারণও করেন। ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণের পর তাঁরা মেয়েটিকে ফেলে রেখে চলে যান। পরে কিশোরী বাড়িতে ফিরে ঘটনাটি তার মাকে জানায়।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় ওই স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে শুক্রবার রাতে কালিয়াকৈর থানায় মামলা করেন। সেই মামলায় ওই তিন যুবককে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আজ শনিবার আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনোয়ার হোসেন চৌধুরী বলেন, কিশোরীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণের খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠিয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন