বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কাশিমপুর থানা এলাকায় ভাড়া বাসায় মায়ের সঙ্গে থাকত ওই কিশোরী। একই বাসার পাশের কক্ষে ভাড়া থাকতেন রনি। আর পাশের বাড়িতে ভাড়া থাকেন রনির বন্ধু মিলন, হাসান ও সাঈদ। রনিদের বাসায় তিন বেলা টাকার বিনিময়ে খাবার খেতেন মিলন, হাসান ও সাঈদ। ওই কিশোরীর সঙ্গে মিলনের প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়। ওই কিশোরীকে পছন্দ করতেন মিলনের বন্ধু রনি ও সাঈদ। তাঁরা বিভিন্ন সময় কিশোরীকে প্রেমের প্রস্তাব দিতেন ও উত্ত্যক্ত করার চেষ্টা করতেন। গত বছরের ৩১ অক্টোবর সকাল ৯টার পর সাঈদ নাশতা খেতে রনির বাসায় যান। পরে সাঈদ ও রনি মিলে কিশোরীর বাসা যান। এ সময় বাসায় কিশোরী একাই ছিল। এ ফাঁকে কিশোরীকে পর্যায়ক্রমে ধর্ষণ করেন সাঈদ ও রনি। ঘটনাটি জানাজানির আশঙ্কায় দুজনে মিলে বালিশ চাপা দিয়ে কিশোরীকে হত্যা করে সটকে পড়েন। পরে কিশোরীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

গাজীপুরের পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ কাওছার উদ্দিন জানান, এ ঘটনায় গত বছরের ৩১ অক্টোবর কাশিমপুর থানায় অপমৃত্যু মামলা করা হয়। পরে ময়নাতদন্তে কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যার আলামত পান চিকিৎসক। এ ঘটনায় ৩ জুলাই পুলিশ বাদী হয়ে হত্যা মামলা করে। চলতি মাসের ১৩ জুলাই অভিযুক্ত সাঈদ ইসলাম ও রনি মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন