বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হামিদুল ইসলাম বলেন, তেজেম মোল্লা তাঁর বোনকে কুপিয়ে হাত-পা বিচ্ছিন্ন করেছেন। এরপর মৃত্যু নিশ্চিত করে আবার নিজেই ফোন করে বিষয়টি তাঁকে জানিয়েছেন। ফোন পেয়ে তাঁরা দ্রুত তেজেম মোল্লার বাড়িতে ছুটে গিয়ে বোনের রক্তাক্ত লাশ পান। তিনি আরও বলেন, ‘আমার বোনকে বিনা অপরাধে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। আমরা এর বিচার চাই।’

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, খবর পেয়ে নিহত গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তর জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত স্বামী পলাতক। তাঁকে ধরতে অভিযান চালানো হচ্ছে। এ ঘটনায় আজ দুপুর পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। নিহত নারীর ভাই হত্যা মামলা করবেন বলে জানিয়েছেন। মামলাটি করা হলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন