default-image

পারিবারিক কলহের জের ধরে বোনের বাড়ি থেকে আনা পিঠা খাওয়াকে কেন্দ্র করে কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার পুজকরা গ্রামে ছুরিকাঘাতে মা নুরজাহান বেগম (৬৫) ও ভাবি নুরুন্নাহারকে (৪৫) কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে। গতকাল সোমবার রাতে নিহত নুরুন্নাহারের স্বামী আজিজুল হক বাদী হয়ে মামলা করেন। হত্যা মামলার একমাত্র আসামি সাইফুল ইসলাম (২৫)। এর আগে গতকাল বেলা ১১টার দিকে ওই জোড়া খুনের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ বলছে, ছোটবেলা থেকেই উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করে আসছেন সাইফুল ইসলাম। তিনি পেশায় রাজমিস্ত্রি। আজ মঙ্গলবার সকালে তাঁকে কুমিল্লা আমলি আদালতে নেওয়া হয়। সেখানে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার না করলে তাঁর রিমান্ড চাওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

মামলার এজাহারে বাদী সাইফুলের বড় ভাই আজিজুল হক অভিযোগ করেছেন, ছোটবেলা থেকে তাঁর সৎভাই সাইফুল ইসলাম উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করে আসছিলেন। গতকাল তাঁর বোন জেসমিন আক্তারের বাড়ি থেকে আনা পিঠা কেন তাঁকে খাওয়ানো হলো, এ নিয়ে কুপিয়ে মা ও তাঁর স্ত্রীকে হত্যা করেন তিনি। আর তাঁর মেয়ে আরজু বেগমকে (১৯) কুপিয়ে জখম করেন। আরজু বর্তমানে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি আছেন। সাইফুল পাশের বাড়িতে তাঁর বোনের বিয়ে হওয়ার বিষয়টি পছন্দ করেননি। এ কারণে তিনি ক্ষুব্ধ ছিলেন।

নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, নিহত নুরুন্নাহারের স্বামী আজিজুল হক এ ঘটনায় হত্যা মামলা করেন। একমাত্র আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সাইফুলের উচ্ছৃঙ্খল আচরণের কারণে তাঁকে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান কয়েকবার শাসনও করেন। লাশ দুটির ময়নাতদন্ত শেষে আজ মঙ্গলবার বিকেলে গ্রামের বাড়িতে দাফন করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন