বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় সরকারি কাজে বাধা ও পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে পুলিশ বাদী হয়ে প্রায় পাঁচ হাজার জনকে আসামি করে মামলা করেছে। আর আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আহত মিজানুর রহমানের মা শেফালী মান্নান বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। ওই মামলায় ৩০ জনের নাম উল্লেখ করে ২০/২৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।

কুষ্টিয়া মডেল থানা সূত্র জানায়, গতকালের ঘটনায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গিয়ে পুলিশের পাঁচ সদস্য আহত হয়েছেন। তাঁদের কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে পুলিশ লাইনসের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সহিংসতার সময় পুলিশ বাধ্য হয়ে ৩৭ রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করেছে এবং ২৫০ রাউন্ড শটগানের ফাঁকা রাবার বুলেট ছুড়েছে।

কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাব্বিরুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, ঘটনার সময় ও পরে আটক ২০ জনকে পুলিশের করা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তাঁদের আজ আদালতে পাঠানো হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, ফাঁকা গুলি না ছুড়লে পরিস্থিতি শান্ত হতো না। বর্তমানে ওই এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। এলাকায় পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন