থানা-পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সংঘর্ষে নিহত মতিয়ার মণ্ডলের ভাই আশরাফুলের করা মামলায় ঝাউদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান কেরামত আলীকে প্রধান আসামি করা হয়েছে। মামলার মোট আসামি ৬৭ জন। আর নিহত রহিম মালিথার ছেলে রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য আনিসুর রহমান মণ্ডলকে প্রধান আসামি করে ২৭ জনের নামে মামলা করেছেন।

ঈদের আগের দিন সোমবার বিকেলে কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষে সংঘর্ষে চারজন নিহত হন। নিহত ব্যক্তিরা হলেন আস্থানগর গ্রামের কাশেম আলী (৫০), লাল্টু মণ্ডল (৩০), রহিম মালিথা (৫০) ও মতিয়ার মণ্ডল (৪০)।

এ ঘটনায় আরও অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে আটজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। সংঘর্ষের সময় কুপিয়ে ওই চারজন হত্যা করা হয়। ঝাউদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি কেরামত আলী বিশ্বাস এবং আওয়ামী লীগ-সমর্থিত ফজলুর রহমানের অনুসারীদের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন