গতকাল বুধবার মাসের শেষ দিনে জেলায় এক দিনে সর্বোচ্চ ৮৩০টি নমুনা পরীক্ষায় ৩২৪ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। নমুনা অনুপাতে শনাক্তের হার ৩৯ দশমিক ৩ শতাংশ। মৃত্যু হয় ৯ জনের।

জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির দেওয়া জুন মাসের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, জেলায় এখন পর্যন্ত ৮ হাজার ৫০ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে জুন মাসের ৩০ দিনে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩ হাজার ৭২ জনের। এখন পর্যন্ত করোনায় মোট মারা গেছেন ২১১ জন, এর মধ্যে জুন মাসে মারা গেছেন ৯৯ জন।

করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতিতে রোগীর চাপ সামাল দিতে ২৫ জুন থেকে ২৫০ শয্যার কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালকে করোনা ডেডিকেডেট ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে সেখানে ২ শতাধিক করোনা রোগী চিকিৎসাধীন।

কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক আক্রামুজ্জামান মিন্টু বলছেন, প্রতি ঘরে করোনা পৌঁছে গেছে। সঠিকভাবে ও দ্রুত চিকিৎসা নিশ্চিত করা ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু এই কাজটা গ্রামের মানুষ করছেন না। এতেই মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়ে যাচ্ছে।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের জ্যেষ্ঠ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ এ এস এম মুসা কবিরের মতে, ‘এখন আর কোনো দোষারোপ না করে কাজে মনোযোগ দিতে হবে। গ্রামের প্রতি ঘরে ঘরে জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে সবাইকে খোঁজ নিতে হবে। কারও জ্বর, ঠান্ডা, কাশি জাতীয় উপসর্গ দেখা দিলেই তাঁকে আইসোলেশনে রাখতে হবে। দ্রুত চিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে। চিকিৎসা নিতে যত দেরি হবে, মৃত্যুর ঝুঁকি তত বাড়বে।’

জেলার সিভিল সার্জন এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, জুনে করোনার দাপট বাড়বে, এমন একটা ধারণা পাওয়া গিয়েছিল। তবে এতটা হবে, সেটা কল্পনার বাইরে ছিল। মানুষকে সচেতন করা ছাড়া আর করোনা মোকাবিলার কোনো পথ নেই।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন