বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দলীয় সূত্র জানায়, তৃতীয় ধাপে এ উপজেলার ১৪টি ইউপির সব কটিতে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী দিয়েছে। তবে এসব ইউপিতে আওয়ামী লীগের ১৮ জন ও সহযোগী সংগঠন থেকে আরও ৫ জন নেতা বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রচারণা চালাচ্ছেন। পরে ৮ নভেম্বর দৌলতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের জরুরি সভায় দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তাঁদের বিরুদ্ধে বহিষ্কারের সুপারিশের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এরপর গতকাল সুপারিশের চিঠি জেলা কমিটি ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের কাছে পাঠানো হয়।

বহিষ্কারের তালিকায় থাকা প্রার্থীরা হলেন দৌলতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও প্রাগপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল হালসানা, মথুরাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শহিদুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের নেতা মনোয়ার কবির, ফিলিপনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা ওরুশ কবিরাজ ও নইমুদ্দিন সেন্টু, মরিচা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা জোয়াদুর রহমান, জাহিদুল ইসলাম, মহিফুল ইসলাম, চিলমারী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা আবদুল মান্নান, হোগলবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা রায়হানুল হক, পিয়ারপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম, রেফায়েতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুর রশিদ, দৌলতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা ইয়াছিন আলী, বোয়ালিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আবু আফফান ও আড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হেলাল উদ্দিন।

এ ছাড়া উপজেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল বাকী, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জহুরুল আলম, পিয়ারপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সোহেল রানা, খলিসাকুণ্ডি ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক এনামুল হক ও জুলমত আলীকে বহিষ্কার করার জন্য নিজ দলের জেলা সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদককে অনুরোধ করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন