বেল্লাল হোসেন বলেন, কাঁকড়াটি দেখতে সুন্দর। প্রজাতিটিও নতুন। এর ওজনও প্রায় এক কেজি। এক জেলের কাছ থেকে তিনি ৮০০ টাকায় কাঁকড়াটি কিনেছেন। পরে বিক্রির জন্য দোকানে সাজিয়ে রেখেছেন। অনেক পর্যটক এসে কাঁকড়াটি কেনার আগ্রহ প্রকাশ করেন। অবশেষে গতকাল বুধবার রাতে এক পর্যটক ৯০০ টাকা দিয়ে কাঁকড়াটি কিনে নেন।

বরিশালের মৎস্য অধিদপ্তরের সাসটেইনেবল কোস্টাল অ্যান্ড মেরিন ফিশারিজ প্রকল্পের উপপ্রকল্প পরিচালক মো. কামরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, এটি একটি ব্ল্যাক মাড কাঁকড়া। এটি কাঁকড়ার একটি প্রজাতি, যা এশিয়া, অস্ট্রেলিয়া এবং আফ্রিকার মোহনা ও ম্যানগ্রোভ অঞ্চলগুলোতে পাওয়া যায়। এটি সিলা সেরাটা, ম্যানগ্রোভ ক্রাব, ব্ল্যাক ক্রাব, সিরাটেড সুইমিং ক্রাব, জায়ান্ট মাড ক্রাব, ইন্দো–প্যাসিফিক সোয়াম্প ক্রাব, এডিবেল মাড ক্রাব ইত্যাদি নামেও পরিচিত। ব্ল্যাক মাড কাঁকড়ার প্রাকৃতিক পরিসর ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে। এটি দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ভারত মহাসাগরের উপকূল থেকে মালয় দ্বীপপুঞ্জ পর্যন্ত পাওয়া যায়। ব্লাক মাড কাঁকড়ার ক্যারাপেস মসৃণ, শক্তিশালী ট্রান্সভার্সাল রিজসহ। একটি গভীর এইচ আকৃতির খাঁজসহ ক্যারাপেসের ওপর গ্যাস্ট্রিক জোন বিদ্যমান। এদের প্রতিটি অ্যান্টেরোলেটাল মার্জিনে প্রশস্ত দাঁত রয়েছে, এদের সব কটিই একই আকারের এবং তির্যকভাবে বাইরের দিকে প্রক্ষেপিত।

ওজন ও আকৃতি: এই প্রকারের কাঁকড়ার গড় প্রস্থ ২৪ সেমি. পর্যন্ত হয় এবং সাড়ে তিন কেজি পর্যন্ত ওজনে হয়ে থাকে।

খাদ্যাভ্যাস: ব্ল্যাক মাড ক্রাব কাঁকড়া খুব কমই উদ্ভিদ উপাদান ও মাছ খায়।

প্রজনন: কাঁকড়াগুলো প্রজননের জন্য উপকূলে চলে যায়। এসব কাঁকড়া সাধারণত পরিণত হয়, যখন তারা প্রায় ৯ সেমি. ক্যারাপেস প্রস্থে পৌঁছায়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এরা জীবনের প্রথম বছরের মধ্যে পরিপক্ক হয়ে ওঠে। ব্ল্যাক মাড প্রজাতির কাঁকড়া এই অঞ্চলে তেমন একটি দেখা যায় না।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন