উপকূলের জীববৈচিত্র্য রক্ষা, পরিবেশ-প্রতিবেশ, মৎস্য ব্যবস্থাপনা এবং সমুদ্রের নীল অর্থনীতি নিয়ে কাজ করা গবেষণা প্রতিষ্ঠান ওয়ার্ল্ড ফিশের ইকো ফিশ-২ প্রকল্পের সহযোগী গবেষক সাগরিকা স্মৃতি বলেন, স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি প্রথমে কচ্ছপটি দেখতে পান। এ সময় তাঁরা লুকিয়ে সেটিকে অন্যত্র নিয়ে যাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে সামুদ্রিক প্রাণী রক্ষায় স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে নিয়োজিত কুয়াকাটার কর্মীরা কচ্ছপ ভেসে আসার খবর পান এবং গিয়ে সেটিকে উদ্ধার করেন।

এটি স্ত্রী কচ্ছপ জানিয়ে সাগরিকা স্মৃতি আরও বলেন, কচ্ছপটি জেলেদের জালে আটকা পড়েছিল বলে মনে হচ্ছে। জেলেরা জাল থেকে কচ্ছপটি ছাড়াতে গিয়ে হয়তো পাখনা কেটে যায়। তবে সামুদ্রিক এই প্রাণীকে জীবিত উদ্ধার করা গেছে। কচ্ছপটির শরীরের নিচের অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

পটুয়াখালী বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুন প্রথম আলোকে বলেন, কচ্ছপটি উদ্ধার করার পর পরিচর্যা করে সতেজ করা হয়। এরপর নৌ পুলিশ, পর্যটন পুলিশ ও বন বিভাগের কর্মীদের উপস্থিতিতে বেলা দুইটার দিকে কুয়াকাটা–সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে ছেড়ে দেওয়া হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন