default-image

রাজশাহীর বাগমারার বাসুপাড়া ইউনিয়ন কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুর রহমানের পেঁয়াজের খেতে পেঁয়াজের সঙ্গে বেড়ে উঠছিল বেশ কিছু গাছ। দেখতে গাঁজার গাছের মতো হওয়ায় সন্দেহবশত পুলিশে খবর দেন স্থানীয় লোকজন। ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই খেত থেকে মোট ২৪ কেজি ওজনের ৫৫টি গাঁজার গাছ জব্দ করে পুলিশ।

গতকাল সোমবার রাতে এ ঘটনা ঘটে বাসুপাড়া ইউনিয়নের খুঁজিপুর গ্রামে। পরে পুলিশ ওই কৃষক লীগ নেতার ছেলে সাগর আহম্মেদকে (১৯) গ্রেপ্তার করে। সাগর একটি কলেজের উচ্চমাধ্যমিকের ছাত্র। তাঁর বাবা মাহাবুর রহমান পলাতক।

মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে মাহাবুর দাবি করেন, গাছগুলো গাঁজার কি না, তা তিনি জানতেন না। তিনি প্রতিপক্ষের ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছেন।

স্থানীয় লোকজনের অভিযোগের বরাত দিয়ে বাগমারা থানা-পুলিশ জানায়, মাহাবুর নিজের পেঁয়াজ খেতের ভেতরে গোপনে ৫৫টি গাঁজার গাছ লাগান। তিনি ও তাঁর ছেলে এগুলোর পরিচর্যা করতেন। সোমবার স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে অভিযোগ পাওয়ার পর রাতে খুঁজিপুর গ্রামে অভিযান চালায় পুলিশ। পুলিশ আসার খবর পেয়ে সটকে পড়েন কৃষক লীগের নেতা।

বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাক আহম্মেদ আজ মঙ্গলবার দুপুরে প্রথম আলোকে বলেন, পুলিশ ওই পেঁয়াজখেত থেকে মোট ২৪ কেজি ওজনের ৫৫টি গাঁজার গাছ উদ্ধার করেছে। থানায় মামলা হয়েছে। গ্রেপ্তার ব্যক্তিকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হবে। অভিযুক্ত মাহাবুর রহমানকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

মাহাবুর রহমানের পদ নিশ্চিত করেন উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি এমদাদ হোসেন। তবে তিনি পেঁয়াজখেত থেকে গাঁজার গাছ জব্দের ঘটনাটি জানেন না।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন