বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, আজ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার গালা ইউনিয়নের কামারঘোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ঢুকে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা ভোট কারচুপি এবং ভয় দেখিয়ে ভোটারদের জোর করে নৌকা প্রতীকে ভোট দিতে বাধ্য করেন। বিষয়টি নিয়ে অন্য চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের সঙ্গে তাঁদের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে কেন্দ্রে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। দুপুর ১২টা থেকে ভোট গ্রহণ স্থগিত থাকে। খবর পেয়ে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে র‌্যাব-৪-এর একটি দল কেন্দ্রের ভেতর থেকে ছাত্রলীগের ওই ১০ নেতা-কর্মীকে আটক করে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বেলা একটার দিকে ভোট গ্রহণ পুনরায় শুরু হয়।

ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা শামীম মিয়া বলেন, কেন্দ্রে বহিরাগত কয়েকজন যুবক ঢুকে পড়লে বিশৃঙ্খলা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এতে ভোট গ্রহণ এক ঘণ্টা স্থগিত ছিল। তাৎক্ষণিক ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানানো হয়। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অতিরিক্ত সদস্যরা ঘটনাস্থলে এলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

হরিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সৈয়দ মিজানুর ইসলাম বলেন, কারাদণ্ডপ্রাপ্ত যুবকদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন