default-image

ঢাকার কেরানীগঞ্জে সড়কের পাশে একটি খেত থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় মো. জুয়েল (২৭) নামের এক অটোরিকশাচালকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। উপজেলার রোহিতপুর ইউনিয়নের নতুন সোনাকান্দা এলাকা থেকে লাশটি উদ্ধার করে কেরানীগঞ্জ মডেল থানা-পুলিশ। আজ শুক্রবার ভোরে লাশটি পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশকে সংবাদ দেন।

পুলিশ লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। নিহত অটোরিকশাচালক জুয়েলের এক সন্তান রয়েছে। তিনি পরিবার-পরিজন নিয়ে উপজেলার রোহিতপুর ইউনিয়নের লাখিরচর গ্রামে ভাড়া থাকতেন। তিনি ভোলা জেলার লালমোহন থানার টেগাইট্যা গ্রামের মফিজুল ইসলামের ছেলে।

বিজ্ঞাপন

নিহত জুয়েলের বোন সাবিনা আক্তার প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমার ভাই জুয়েল গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল চারটার দিকে অটোরিকশা নিয়ে ঘর থেকে বের হন। রাত ১০টার পরও তিনি বাড়ি না ফেরায় নতুন সোনাকান্দা পুলিশ ফাঁড়িতে গিয়ে জানাই। পরদিন ভোরে ভাইয়ের মরদেহ নতুন সোনাকান্দা এলাকার সড়কের পাশে একটি খেতে পড়ে আছে সংবাদ পাই। কে বা কারা আমার ভাইকে হত্যা করেছে, সে বিষয়ে কিছুই জানি না। আমি ভাই হত্যার বিচার চাই।’

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী মাইনুল ইসলাম বলেন, আজ ভোরে পুলিশ অটোরিকশাচালক জুয়েলের লাশ উদ্ধার করে। সুরতহাল শেষে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত ব্যক্তির বোন সাবিনা আক্তার বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে থানায় হত্যা মামলা করেছেন। এ ঘটনায় তদন্ত চলেছে।

মন্তব্য পড়ুন 0