বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় বাসচালক মোহাম্মদ আলীকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত ব্যক্তিরা হলেন হামিদা বেগম (৫৫) ও সুমাইয়া আক্তার (১৫)। নিহত হামিদা বাস্তা ইউনিয়নের আবদুর রশিদের স্ত্রী এবং সুমাইয়া একই গ্রামের সোহেল মিয়ার মেয়ে।

ইজিবাইকটি পাঁচজন যাত্রী নিয়ে কদমতলী থেকে কোণাখোলার উদ্দেশে যাচ্ছিল। পথে দেওসুর এলাকায় গুলিস্তানগামী দিশারী পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে এটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী রাকিব হোসেন বলেন, ইজিবাইকটি পাঁচজন যাত্রী নিয়ে কদমতলী থেকে কোণাখোলার উদ্দেশে যাচ্ছিল। পথে দেওসুর এলাকায় কালভার্টের কাছে পৌঁছালে রোহিতপুর থেকে ছেড়ে আসা গুলিস্তানগামী দিশারী পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে এটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ইজিবাইকটির পাঁচ যাত্রী গুরুতর আহত হন। তৎক্ষণাৎ তিনি গুরুতর আহত অবস্থায় হামিদা বেগমকে উদ্ধার করে সাজেদা হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ছাড়া স্থানীয় ব্যক্তিরা অন্য আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে কেরানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক সুমাইয়া আক্তারকে মৃত ঘোষণা করেন। বাকি তিন আহত ব্যক্তিকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু ছালাম মিয়া বলেন, এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন। দিশারী পরিবহনের বাসটি জব্দ করা হয়েছে। বাসচালক মোহাম্মদ আলীকে আটক করা হয়েছে। নিহত দুজনের লাশ সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আহত অন্যদের কেরানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন