বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এই কেন্দ্রের পুরুষ ১ নম্বর কেন্দ্রের সহকারী প্রিসাইডিং কম৴কর্তা আয়ুব আলী বলেন, তাঁর বুথে ২০০ ব্যালটে সিল দেওয়া হয়েছে। কিছু ব্যালট পেপার ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে।

কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা নিখিল চন্দ্র দাস বলেন, এখানে ১ হাজার ৯২৯টি ভোট। সবাইকে ভয় দেখিয়ে প্রায় এক হাজার ব্যালটে সিল মারার ঘটনা ঘটেছে। এ কেন্দ্রের ভোট স্থগিত করা হয়েছে।

কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এম এম আরাফাত হোসেন বলেন, সিল মারা ব্যালট বাতিল করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন