default-image

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে আজ রোববার ভোরে গুলিবিদ্ধ এক ভারতীয় তরুণকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছে পুলিশ। ওই তরুণের দাবি, পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহারে নির্বাচনী সহিংসতা ঘিরে কারফিউয়ের মধ্যে বাড়ির বাইরে বের হয়ে তিনি গুলিবিদ্ধ হন। পরে স্বজনেরা তাঁকে বাংলাদেশে নানার বাড়িতে চিকিৎসা নিতে পাঠান। বিএসএফ বলছে, সীমান্তে মাদক পাচারের সময় তাঁকে গুলি করা হয়েছিল।

গুলিবিদ্ধ ওই তরুণের নাম মিলন মিয়া (১৮)। তিনি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার জেলার সাহেবগঞ্জ থানার মাইদালের কুঠি গ্রামের জগু আলমের ছেলে। মিলন বর্তমানে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) পুলক কুমার সরকার বলেন, ভারতীয় ওই যুবক পাঁজরের ডান দিকে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। ভোর ৪টায় তাঁকে জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আনা হয়। তাঁকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। বর্তমানে তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সূত্র জানা গেছে, এ ঘটনায় আজ রোববার সকালে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্তের ৯৪৬ আন্তর্জাতিক পিলারের কাছে বিএসএফ ও বিজিবির মধ্যে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে বিএসএফ জানায়, কাঁটাতারের বেড়ার কাছে মাদক চোরাচালানের সময় মিলনকে গুলি করা হয়। পরে অহত অবস্থায় তিনি বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেন। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রোববার সন্ধ্যার আগেই তাঁকে বিএসএফের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

বিজ্ঞাপন
default-image

তবে আহত মিলন মিয়া দাবি করেছেন, ভারতের কোচবিহার জেলার সাহেবগঞ্জ থানায় নির্বাচনী সহিংসতায় কারফিউ চলাকালে শনিবার সন্ধ্যায় বাড়ির বাইরে বের হয়েছিলেন তিনি। এ সময় চৌধুরীর হাট এলাকায় তিনি গুলিবিদ্ধ হন। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় প্রতিবেশীরা তাঁকে চিকিৎসার জন্য বাংলাদেশের অভ্যন্তরে কুড়িগ্রামে তাঁর নানার বাড়িতে পাঠান। গুলিবিদ্ধ মিলন মিয়া শনিবার রাতে ফুলবাড়ী উপজেলার অনন্তপুর সীমান্তের আন্তর্জাতিক সীমান্ত পিলার ৯৪৬/৫ এস–এর কাছ দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেন। এরপর নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ ইউনিয়নে তাঁর নানাবাড়িতে আসেন।

মিলনের নানা মকবুল হোসেন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে তাঁর মেয়েজামাই এবং তিন নাতি ভারতে বসবাস করছে। তারা ভারতের নাগরিক। মিলন ভারতে গুলিবিদ্ধ হয়ে তাঁর বাড়িতে আসেন। পরে নাগেশ্বরী থানা–পুলিশ তাঁকে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসে।

নাগেশ্বরী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রওশন কবির বলেন, গুলিবিদ্ধ ওই তরুণের নানার বাড়ি ভিতরবন্দ ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের দোয়ালিপাড়া গ্রামে। সেখান থেকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে তাঁকে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ লালমনিরহাট ১৫ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল তৌহিদুল আলম বলেন, এ ঘটনায় বিএসএফের সঙ্গে সকালে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বিএসএফএর ১৯২ ব্যাটালিয়নের কমান্ডার মি. রাওয়াড। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় ভারতীয় যুবককে রোববার সন্ধ্যার আগেই বিএসএফের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন