বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বক্তারা বলেন, কথিত ‘সত্য বচনের’ নামে প্রায় ১১ মাস ধরে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জকে অশান্ত করে রেখেছেন বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। তাঁর সশস্ত্র ক্যাডার বাহিনীর হামলায় এরই মধ্যে কোম্পানীগঞ্জে দুটি তাজা প্রাণ ঝরে গেছে। পঙ্গু হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুর নবী চৌধুরী ও সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদলসহ অনেকে। বক্তারা অভিযোগ করেন, কাদের মির্জার লেলিয়ে দেওয়া ক্যাডার বাহিনী একে একে তিনবার উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান সভাপতি ও বীর মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে হামলা চালিয়েছে। এর মধ্যে দুবার সশস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে। হামলাকারীদের গুলি ও ককটেলের শব্দে পুরো এলাকা প্রকম্পিত হয়েছে। তাঁদের হামলা ও ভাঙচুরে আওয়ামী লীগ নেতার বাড়ি ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়।

এসব অপকর্মের জন্য মেয়র কাদের মির্জাকে দল থেকে বহিষ্কারসহ তাঁর বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানান বক্তারা। অন্যথায় কঠোর কর্মসূচির মাধ্যমে দাবি আদায়ের ঘোষণার কথা বলেন তাঁরা।

হামলার ঘটনায় থানায় মামলা

উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা খিজির হায়াত খানের বাড়িতে শনিবার রাতে হামলা, ভাঙচুর ও গুলির ঘটনায় আজ দুপুরে থানায় একটি মামলা হয়েছে। মামলায় কাদের মির্জার অনুসারী মানিক ওরফে বুবির হোলা (৩০) ও মাসুদ ওরফে পিচ্চি মাসুদসহ ১৪ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া অজ্ঞাতনামা আরও ১৫ থেকে ২০ জনকে আসামি করা হয়েছে। খিজির হায়াত খান বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

আজ বিকেল চারটায় কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুদ্দিন আনোয়ার বলেন, মামলাটির এক আসামি আবদুল কাইয়ুমকে (৩৩) ইতিমধ্যে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি কাদের মির্জার অনুসারী। অপর মামলায় কাদের মির্জার তিন অনুসারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অপর একজনের বিরুদ্ধে কোনো মামলা না থাকায় তাঁকে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

শনিবার রাত পৌনে আটটায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খানের চর কাঁকড়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের গ্রামের বাড়িতে হামলা চালায় একদল দুর্বৃত্ত। সিসি টিভির ফুটেজে হামলাকারীদের মধ্যে দুজনের হাতে অস্ত্র দেখা যায়। তাঁরা গুলি করতে করতে বাড়িতে প্রবেশ করেন। এ ছাড়া অন্যরা রড ও লাঠি দিয়ে বাড়িতে দরজা–জানালা ভাঙচুর করেন এবং ভাঙা জানালা দিয়ে ঘরের ভেতর ককটেল নিক্ষেপ করেন। এ ঘটনায় অল্পের জন্য রক্ষা পান খিজির হায়াত খানের পরিবারের সদস্যরা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন