বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার ওই নারীর বাড়ি কয়রা সদর উপজেলায়। ১৭ এপ্রিল রাত ১১টার দিকে কয়েকজন যুবক অস্ত্রের মুখে তাঁকে জিম্মি করে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। ঘটনার সময় ওই নারীর স্বামী বাড়িতে ছিলেন না।

ঘটনার পরদিন সকালে ওই নারী নিজে থানায় গিয়ে অভিযোগ করেন। যাচাই-বাছাইয়ের পর দুপুরের দিকে মামলা নেয় পুলিশ। এরপর বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। মামলার এজাহারে ওই নারী পাঁচজনের নাম উল্লেখ করেছেন। আর অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছিল একজনকে।

কয়রা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল হোসেন আসামিদের জবানবন্দির বরাত দিয়ে বলেন, রাতে ওই নারী ঘরের বাইরে শৌচাগারে গিয়েছিলেন। তখন আসামিরা তাঁকে (ওই নারী) ঘিরে ধরে বলেন, তাঁর ঘরে নাকি ‘অন্য কেউ’ আছে। ভুক্তভোগী ওই নারী তখন তা অস্বীকার করলে আসামিরা ঘর তল্লাশি করার নামে ওই নারীকে ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করেন। এ সময় কয়েকজন বাইরে পাহারা দিচ্ছিলেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন