বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিহত তামিমের বড় বোন মোছা. জান্নাত বলেন, দুপুর ১২টার দিকে দেয়াল ধসে আহত হওয়ার পর তামিমকে সোনাডাঙ্গার হেলথ কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বেলা তিনটার দিকে সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। স্থানীয় লোকজন জানান, করিমনগর এলাকায় অবস্থিত ওজোপাডিকোর প্রধান কার্যালয়ের পেছনের দেয়াল অনেক পুরোনো ও জরাজীর্ণ ছিল। ওই দেয়ালটি সংস্কারের জন্য স্থানীয় লোকজন কর্তৃপক্ষকে বারবার তাগাদা দিয়েছিলেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সেটি সংস্কারের কাজ চলছিল। ওই তিন শিশু সেখানে খেলা করার সময় হঠাৎ দেয়ালের ১০০ ফুটের মতো ধসে তাঁদের গায়ের ওপর পড়ে। এতে তামিম ও ইয়ামিন গুরুতর আহত হয়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সোনাডাঙ্গা থানার ওসি মমতাজুল হক বলেন, ওই দেয়াল জরাজীর্ণ হয়ে গেছে। দেয়াল সংস্কারের জন্য সম্প্রতি দুই পাশের প্লাস্টার খুলে ফেলা হয়েছে। হঠাৎ দেয়ালটি ধসে পড়ে। শিশুটির লাশ ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় বিকেল পর্যন্ত কেউ থানায় অভিযোগ করেননি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন