বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ফুলতলা উপজেলার চারটি ইউপির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে দুটিতে নৌকার প্রার্থী ও দুটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। ওই দুই স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে একজন বিএনপি নেতা। ওই উপজেলার ফুলতলা সদর ইউপিতে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা শেখ আবুল বাশার, জামিরা ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সরদার মনিরুল ইসলাম, দামোদর ইউপিতে জয়ী নৌকার প্রার্থী শরীফ মো. ভূঁইয়া এবং আটরা গিলাতলা ইউপিতে জয়ী নৌকার প্রার্থী মনিরুল ইসলাম।

জেলা চারটি উপজেলার ২৫টি ইউপির মধ্যে ১০টিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এবং ১৫টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। স্বতন্ত্রদের মধ্যে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ১০ জন এবং ৫ জন বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত।

ডুমুরিয়া উপজেলার ১৪টি ইউপির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ উপজেলায় সবচেয়ে বেশি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহীরা জয়ী হয়েছেন। মাত্র দুটি ইউপিতে নৌকার প্রার্থী জয় পেয়েছেন। বাকিগুলোতে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয় পেয়েছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে চারজন বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। ওই উপজেলায় নৌকার বিপক্ষে নির্বাচনে অংশ নেওয়া ও নৌকার বিপক্ষে কাজ করার জন্য জেলা আওয়ামী লীগ থেকে ১১২ জন নেতা-কর্মীকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

ডুমুরিয়া উপজেলার রঘুনাথপুর ইউপিতে জয়ী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী মনোজিত বালা, মাগুরখালী ইউপিতে নৌকার প্রার্থী বিমল কৃষ্ণ সানা, খর্ণিয়া ইউপিতে জয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা শেখ দিদারুল ইসলাম, ধামালিয়া ইউপিতে জয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা জহুরুল হক, আটলিয়া ইউপিতে জয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা শেখ হেলাল উদ্দিন, ভান্ডারপাড়া ইউপিতে জয়ী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী গোপাল চন্দ্র দে, রুদাঘরা ইউপিতে জয়ী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী মো. তৌহিদুজ্জামান, রংপুর ইউপিতে জয়ী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী সমরেশ মণ্ডল, ডুমুরিয়া সদর ইউপিতে জয়ী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী গাজী মো. হুমায়ূন কবীর, শোভনা ইউপিতে জয়ী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী সুরঞ্জিত কুমার বৈদ্য, শরাফপুর ইউপিতে জয়ী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী শেখ রবিউল ইসলাম, মাগুরাঘোনা ইউপিতে জয়ী নৌকার প্রার্থী মো. রফিকুল ইসলাম, গুটুদিয়া ইউপিতে জয়ী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী শেখ তুহিনুল ইসলাম এবং সাহস ইউপিতে জয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা মো. মাহবুবুর রহমান।

এ ছাড়া বটিয়াঘাটা উপজেলার তিনটি ইউপির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে দুটিতে নৌকার প্রার্থী এবং একটিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। ওই উপজেলার সদর ইউপিতে জয় পেয়েছেন নৌকার প্রার্থী পল্লব কুমার বিশ্বাস, ভান্ডারকোট ইউপিতে জয়ী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ওবায়দুল্লাহ শেখ এবং সুরখালী ইউপিতে জয়ী নৌকার এস কে জাকির হোসেন। এর মধ্যে সদর ইউপিতে নির্বাচিত হওয়া পল্লব কুমার বিশ্বাস খুলনা-১ আসনের (দাকোপ-বটিয়াঘাটা) সাংসদ ও জাতীয় সংসদের হুইপ পঞ্চানন বিশ্বাসের ছেলে।

খুলনায় অনুষ্ঠিত হওয়া দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ১১৪ প্রার্থী। কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে দাবি করেছেন জেলা জ্যেষ্ঠ নির্বাচন কর্মকর্তা এম মাজহারুল ইসলাম।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন