বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রতিবছরের এ সময়ে একই জায়গায় ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্যে এমন আয়োজন উপভোগ করে এলাকাবাসী। বেলা তিনটার পর শুরু হয় মূল প্রতিযোগিতা। শুরুর দিকে কিছুটা ধীরে দৌড় চললেও কিছুক্ষণের মধ্যে তা ভীষণ গতি পায়। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ঘোড়াগুলো নিয়ে এসেছিলেন ঘোড়ার মালিকেরা। তাঁরা শুধু প্রতিযোগিতার জন্যই ঘোড়া পোষেন। ঘোড়া নিয়ে ছুটে যান যেখানেই খেলা হয়, সেখানে। ঘোড়ার পিঠে চাবুক হাতে প্রতিযোগিতায় অংশ নেন ঘোড়সওয়ারেরা।

প্রায় ১০ হাজার মানুষ উপভোগ করে এ প্রতিযোগিতা। গতকাল দিনভর এমন আয়োজন ঘিরে চলে আনন্দ উৎসব। ঘোড়দৌড়ের পাশাপাশি চলতে থাকা গ্রামীণ মেলা ঘিরেও উৎসাহ ছিল। এবারের প্রতিযোগিতায় ৩০টি ঘোড়া অংশগ্রহণ করে। প্রতিযোগী ঘোড়াগুলো মোট সাতবার দৌড়ে অংশ নেয়।

চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় নড়াইলের লোহাগড়ার নাজমুলের ঘোড়া ‘কালাই’ প্রথম, লেবুগাতীর অপু বিশ্বাসের ঘোড়া ‘অগ্নি’ দ্বিতীয়, যশোরের অভয়নগরের সাজাহান সরদারের ঘোড়া ‘পঙ্খিরাজ’ তৃতীয়, অভয়নগরের জাকির গাজীর ঘোড়া ‘ব্যাচেলর বাহাদুর’ চতুর্থ ও হালিম মোল্লার ঘোড়া ‘রকেট’ পঞ্চম হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন