বিজ্ঞাপন
default-image

প্রায় আট মাস পর সাগরের লোনা পানিমুক্ত হয় কয়রা উপজেলা। আম্পানের ক্ষত এখনো শুকায়নি। এরই মধ্যে আবার নতুন করে সংকটে পড়ল কয়রার মানুষ। যদিও বিকেলের দিকে ভাটায় পানি নেমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাঁধ সংস্কারের কাজে নেমে পড়েছেন স্থানীয় ব্যক্তিরা।

default-image

ঝড়ের কোনো প্রভাব ছিল না কয়রায়। গতকাল মঙ্গলবার রাতের জোয়ারের পানি প্রবেশ ঠেকিয়ে দেন এলাকাবাসী। তবে আজ বুধবার দুপুরের জোয়ারে আর শেষ রক্ষা হয়নি। পানি যত বেড়েছে, কোদাল আর প্লাস্টিকের বস্তা নিয়ে মানুষ তত পানি আটকানোর চেষ্টা করেছেন। তারপরও বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রায় ৪ কিলোমিটারের মতো বাঁধ ভেঙে গেছে। দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের শাকবাড়িয়া নদীর আংটিহারা, বীণাপানি এলাকা, উত্তর বেদকাশি ইউনিয়নের একই নদীর গাতিরঘেরি, পদ্মপুকুর এলাকা, মহেশ্বরীপুর ইউনিয়নের কয়রা নদীর তেঁতুলতলা, চৌকনি, শিংয়ের চর এলাকা, মহারাজপুর ইউনিয়নের কয়রা নদীর পবনা ও মঠবাড়ি এলাকা এবং কপোতাক্ষ নদের দশালিয়া এলাকার বাঁধ ভেঙে গেছে।

কয়রা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) সাগর হোসেন বলেন, জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গিয়ে ৫ হাজার ৮৫০টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আংশিক বিধ্বস্ত বাড়ির সংখ্যা ১ হাজার ২০০। আর সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে ৫০টির মতো ঘর। আশ্রয়কেন্দ্রে ৫ হাজার ২০০ মানুষ রয়েছেন।

কয়রা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অনিমেষ বিশ্বাস বলেন, যে উচ্চতায় জোয়ার হয়েছে, তাতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) কিছু করার ছিল না। তারপরও সবার চেষ্টায় কাজ করে ভয়াবহতা ঠেকানো গেছে। জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় মানুষের সহায়তায় ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ মেরামতের কাজ চলছে। রাতের জোয়ারে যদি বড় কোনো সমস্যা না হয়, তাহলে এ যাত্রায় কয়রায় খুব বেশি ক্ষতি না–ও হতে পারে।

default-image

পাইকগাছা উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে অন্তত ৭টি স্থানের বাঁধ ভেঙে গেছে। এতে ১ হাজার ২০০টির মতো পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ মেরামতে এলাকাবাসী কাজ করছেন বলে জানান ওই উপজেলার পিআইও ইমরুল কায়েস। তিনি বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ এলাকার ২৫০ জনকে আশ্রয়কেন্দ্রে রাখা হয়েছে।

দাকোপ উপজেলায় তীলডাঙ্গা ইউনিয়নের সোনার বাংলা কলেজের পাশের স্লুইসগেট এলাকার বাঁধ ভেঙে গেছে। এ ছাড়া ৮ থেকে ১০টি স্থান বাঁধ উপচে পানি লোকালয়ে প্রবেশ করলেও তাতে তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি বলে জানান পিআইও শেখ আবদুল কাদের। তিনি বলেন, বাঁধ ভেঙে যে ক্ষতি হয়েছে, তা নিরূপণ করা যায়নি। বটিয়াঘাটা উপজেলায় কয়েকটি স্থানে বাঁধ উপচে পড়লেও তাতে খুব বেশি ক্ষতি হয়নি বলে জানান ইউএনও মো. নজরুল ইসলাম।

default-image

খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে যেতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া জরুরি খাদ্যসহায়তা, শিশুখাদ্য ও গোখাদ্য সরবরাহ করা হচ্ছে। পাউবো বাঁধ মেরামতের কাজ করছে। রাতের জোয়ারে বড় কোনো বিপর্যয় না হলে হয়তো আর কোনো সমস্যা হবে না।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন