default-image

খুলনায় করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক টিকা পৌঁছেছে। আজ রোববার দুপুরে টিকা বহনকারী গাড়িটি নগরের স্কুল হেলথ ক্লিনিকে পৌঁছায়। প্রথম ধাপে আসা ১ লাখ ৬৮ হাজার টিকা গ্রহণ করে খুলনার সিভিল সার্জন নিয়াজ মোহাম্মদের নেতৃত্বাধীন ১৩ সদস্যের কমিটি।

সিভিল সার্জন নিয়াজ মোহাম্মদ প্রথম আলোকে বলেন, প্রথম চালানে রোববার দুপুরে ১৪টি কার্টন পাওয়া গেছে। প্রতিটি কার্টনে ১২ হাজার ডোজ টিকা আছে। এই টিকা ১ লাখ ৬৮ হাজার মানুষকে দেওয়া যাবে।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানায়, খুলনায় করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক টিকা সংরক্ষণ, টিকাদানকেন্দ্র নির্ধারণ, কর্মীদের প্রশিক্ষণসহ টিকা প্রদান কার্যক্রম সফল বাস্তবায়নের প্রস্তুতি চূড়ান্ত পর্যায়ে। সারা দেশের মতো খুলনায়ও প্রথম ধাপের টিকা প্রদান কার্যক্রম শুরু হবে ৭ ফেব্রুয়ারি। খুলনায় সম্মুখ সারির ৯৭ হাজার ২৩০ জনকে প্রথম ধাপে টিকা দেওয়া হবে। পরে প্রতি মাসে করোনা টিকা পাওয়া যাবে।

নগরের স্কুল হেলথ ক্লিনিকে ১৩টি ও ৯টি উপজেলায় ১৭টি আইএলআরে (আইস লাইনড রেফ্রিজারেটর) টিকা সংরক্ষণ করা হবে। টিকা ২ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় রাখতে সার্বক্ষণিক বিদ্যুতের ব্যবস্থা নিশ্চিতে সংরক্ষণাগারে বিদ্যুৎ সংযোগের পাশাপাশি রাখা হয়েছে জেনারেটরের ব্যবস্থা। এ ছাড়া যুক্ত করা হয়েছে বিদ্যুতের দুটি ফেজও।

বিজ্ঞাপন

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পরিকল্পনা অনুযায়ী, প্রথম ধাপে নগরের সদর হাসপাতাল, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বক্ষব্যাধি হাসপাতাল, পুলিশ হাসপাতাল, রেলওয়ে হাসপাতাল, বিজিবি হাসপাতাল, তালতলা হাসপাতাল ও লাল হাসপাতালে করোনার টিকা দেওয়া হবে। আর উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ টিকা দেওয়া হবে। প্রতিটি টিকাদানকারী দলে দুজন টিকা প্রয়োগকারী ও চারজন স্বেচ্ছাসেবী থাকবেন। টিকাদানের কাজে নিয়োজিত স্বাস্থ্যকর্মীদের বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। টিকা দেওয়ার জন্য ১৩২ জনকে প্রশিক্ষণের আওতায় আনা হচ্ছে।

খুলনা নগরের টিকাদান কর্মসূচির কার্যক্রম পরিচালনা করবে সিটি করপোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগ। সফল বাস্তবায়নে সিটি করপোরেশনের মেয়রকে সভাপতি ও একই সংস্থার প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তাকে সদস্যসচিব করে ১৩ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়া উপজেলা পর্যায়ে প্রতি উপজেলায় কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সিভিল সার্জন নিয়াজ মোহাম্মদ বলেন, এরই মধ্যে প্রথম ধাপের টিকাপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের প্রাথমিক তালিকা তৈরি করা হয়েছে। খুলনা জেলায় সম্মুখ সারির ৯৭ হাজার ২৩০ জন প্রথম ধাপে টিকা দেওয়া হবে। তবে তালিকায় নাম থাকলেও টিকা পেতে অবশ্যই নিজের জাতীয় পরিচয়পত্র ও মোবাইল নম্বর যুক্ত করে অনলাইনে নিবন্ধন করতে হবে। নিবন্ধন ছাড়া কাউকে টিকা দেওয়ার সুযোগ নেই। এ ছাড়া যে কেন্দ্র থেকে টিকা নিতে ইচ্ছুক, সেটা উল্লেখ করতে হবে ও সেখান থেকেই টিকা গ্রহণ করতে হবে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রথম পর্যায়ের তালিকায় খুলনা সিটি করপোরেশন ও দুটি পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারী, খুলনায় কর্মরত সরকারি কর্মচারী, সরকারি হাসপাতালে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী, বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিজিবি সদস্য, পুলিশ সদস্য, আনসার ও ভিডিপির সদস্য, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি এবং গণমাধ্যমকর্মীদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন