default-image

খুলনা সরকারি বিএল কলেজের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক মোহাম্মদ আলীকে পিটিয়ে আহত করার ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়েছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। পাশাপাশি হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিও জানান তাঁরা।

বুধবার দুপুরে বিএল কলেজের সামনে যৌথভাবে মানববন্ধনের আয়োজন করে বিএল কলেজ শিক্ষক পরিষদ ও বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি খুলনা জেলা শাখা। এতে বিএল কলেজের রোভার স্কাউটের সদস্য ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বিএল কলেজের সোনালী ব্যাংকের সামনে দুর্বৃত্তরা শিক্ষক মোহাম্মদ আলীকে মারধর করে পালিয়ে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভর্তি করা হয়। বর্তমানে সেখানেই তিনি চিকিৎসাধীন।

কলেজ সূত্রে জানা যায়, কলেজের মধ্যে দুই তরুণ-তরুণীকে ‘অশ্লীল কার্যকলাপ’ করতে দেখে তাঁদের সেখান থেকে চলে যেতে বলেছিলেন শিক্ষক মোহাম্মদ আলী। পরে ওই তরুণ ফোন করে কয়েকজনকে ডেকে নিয়ে ওই শিক্ষকের ওপর হামলা চালান। এ সময় তাঁর মাথায় ইট দিয়ে আঘাত করা হয়।

বিজ্ঞাপন

মানববন্ধনে শিক্ষকেরা বলেন, মোহাম্মদ আলীর ওপর হামলা হওয়ার ২৪ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। এটা খুবই হতাশার। একজন শিক্ষক হলেন মানুষ গড়ার কারিগর। সেই কারিগরদের ওপর হামলা মানে সবার ওপরেই হামলা। মানুষের নৈতিকতা কোন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে একজন শিক্ষকের ওপর হামলা করতেও কারও হাত কাঁপছে না। মানববন্ধন থেকে শিক্ষকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জোর দাবি জানানো হয়।

বিএল কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শরীফ আতিকুজ্জামানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তৃতা করেন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি খুলনা জেলা শাখার সভাপতি অধ্যাপক টি এম জাকির হোসেন, কেন্দ্রীয় সহসভাপতি খান আহমেদুল কবির, বিএল কলেজ শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক অধ্যাপক হামিদুল হক, অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ফারুখে আযম মো. আবদুস সালাম প্রমুখ।

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান আল মামুন বলেন, ওই শিক্ষকের পক্ষ থেকে এখনো থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়নি। তারপরও হামলাকারীদের চিহ্নিত করে আটকের চেষ্টা চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন