বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অশনির প্রভাবে গতকাল মঙ্গলবার খুলনা বিভাগে ভারী বৃষ্টির কথা বলেছিল আবহাওয়া কার্যালয়। কিন্তু খুলনা জেলায় সেটি হয়নি। গতকাল সকাল থেকে খুলনায় ছিল রৌদ্রোজ্জ্বল পরিবেশ।

খুলনার উপকূলীয় তিনটি উপজেলা কয়রা, দাকোপ ও পাইকগাছার মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সকালে আবহাওয়া ভালো থাকলেও সাড়ে ৯টার পর থেকে ওই এলাকাগুলোতেও আকাশ কালো মেঘ জমে আছে। পাঁচ থেকে সাত মিনিট বৃষ্টির হয়েছে। গতকাল নদীতে জোয়ারের উচ্চতা স্বাভাবিকের চেয়ে সামান্য বৃদ্ধি পেয়েছিল। তবে আজ নদী শান্ত।

কৃষির ক্ষতির আশঙ্কা

খুলনার বিভিন্ন এলাকার জমিতে এখনো আধা পাকা বোরো ধান রয়েছে। রয়েছে শত শত বিঘার তরমুজখেত। বৃষ্টি হলে এসব ফসলের মারাত্মক ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা করছেন কৃষকেরা।

পাইকগাছা উপজেলার গড়াইখালী ইউনিয়নে এবার আট বিঘা জমিতে তরমুজের চাষ করেছিলেন শান্ত মণ্ডল। তিনি বলেন, তরমুজ তোলার উপযুক্ত হলেও বিক্রি না হওয়ায় তা খেতেই পড়ে আছে। বেশি বৃষ্টি হলে তা নষ্ট হয়ে যাবে।

খুলনা কৃষি কার্যালয়ের তথ্যানুযায়ী, এ বছর খুলনায় ৬২ হাজার ৭৩০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। আর তরমুজের আবাদ হয়েছে ১৩ হাজার ৯৭০ হেক্টর জমিতে। ৭৫ শতাংশ তরমুজ ও ৯৩ শতাংশ জমির বোরো ধান কাটা হয়ে গেছে।

খুলনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. হাফিজুর রহমান বলেন, এখনো কিছু ধান ও তরমুজ জমিতে পড়ে রয়েছে। যা আছে, তা ভারী বৃষ্টি হলে নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে সেগুলো কেটে নেওয়ার।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন