বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত ২৪ ঘণ্টায় আগের দিনের চেয়ে ৩৬টি নমুনা কম পরীক্ষা হয়েছে। আগের ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ছিল ৬ দশমিক ৮৪ শতাংশ। ওই সময়ে বিভাগে করোনায় সংক্রমিত চারজনের মৃত্যু হয়েছিল। করোনা শনাক্ত হয়েছিল ১১৬ জনের। সে হিসেবে গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে করোনা রোগী শনাক্ত, শনাক্তের হার ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে।

খুলনা বিভাগের মধ্যে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত বছরের ১৯ মার্চ চুয়াডাঙ্গায়। তখন থেকে এ পর্যন্ত বিভাগের ১০ জেলায় মোট ১ লাখ ১১ হাজার ১০৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের সংখ্যা বিবেচনায় জেলাগুলোর মধ্যে শীর্ষে আছে খুলনা। এ জেলায় ২৭ হাজার ৬৯৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সবচেয়ে কম মাগুরায় ৪ হাজার ১২৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে খুলনার সর্বোচ্চ ৩১ জন। এ ছাড়া বাগেরহাটে ৪, সাতক্ষীরায় ১৪, যশোরে ২১, নড়াইলে ২, মাগুরায় ৫, ঝিনাইদহে ১২, কুষ্টিয়ায় ২০, চুয়াডাঙ্গায় ৫ ও মেহেরপুরে ৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বিভাগের ১০ জেলায় এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হওয়ার পর সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৩ হাজার ৬৪১ জন। সুস্থতার হার ৯৩ দশমিক ২৮ শতাংশ। বিভাগে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যাও কমছে। আজ পর্যন্ত ১০ জেলায় করোনা রোগী আছেন ৪ হাজার ৩৭০ জন। তাঁদের মধ্যে ২৮১ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অন্যরা বাড়িতে রয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া পাঁচজনের মধ্যে তিনজন খুলনা জেলার। এর বাইরে যশোর ও ঝিনাইদহে একজন করে মারা গেছেন। বিভাগে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন ৩ হাজার ৯৫ জন। মৃত্যুর হার ২ দশমিক ৭৯ শতাংশ।

খুলনা জেলায় সর্বোচ্চ ৭৮৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছে কুষ্টিয়ায় ৭৫৪ জন। এ ছাড়া যশোরে ৪৮৪, ঝিনাইদহে ২৬৫, চুয়াডাঙ্গায় ১৮৯, মেহেরপুরে ১৮০, বাগেরহাটে ১৪২, নড়াইলে ১১৮, মাগুরায় ৯০ ও সাতক্ষীরায় ৮৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন