default-image

খুলনা বিভাগে কোভিড–১৯ রোগীর সংখ্যা সাড়ে ১০ হাজার ছাড়িয়েছে। বিভাগে প্রথম রোগী শনাক্ত হওয়ার ১২৮তম দিনে আজ রোববার রোগীর সংখ্যা সাড়ে ১০ হাজার ছাড়াল। এর মধ্যে শুধু খুলনা জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা আজ ৪ হাজার ছাড়িয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টার হিসাবে খুলনা বিভাগে নতুন করে ২৩৪ জন কোভিড–১৯ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে বিভাগের ১০ জেলায় রোগীর সংখ্যা ১০ হাজার ৬৯৫। মাগুরা ও মেহেরপুর বাদে অন্য আট জেলায় রোগী ৫০০ ছাড়িয়েছে। বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র জানায়, বিভাগের ১০ জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ৮ জন মারা যাওয়ায় মৃতের সংখ্যা ১৯৮ দাঁড়িয়েছে। মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে জুলাই মাসেই মারা গেছেন ১২৬ জন, অর্থাৎ এই মাসে প্রায় ৬৪ শতাংশের মৃত্যু হয়েছে। খুলনা বিভাগের মধ্যে চুয়াডাঙ্গায় প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত ১৯ মার্চ। পরবর্তী ৭৩ দিনে শনাক্তের সংখ্যা ছাড়ায় ৫০০।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) মো. মনজুরুল মুরশিদ জানান, বিভাগে নতুন করে ২৯৩ জন সুস্থ হয়েছেন। এ নিয়ে সুস্থ হলেন ৫ হাজার ৮০০ জন। শনাক্ত বিবেচনায় বিভাগে সুস্থতার হার প্রায় ৫৫ শতাংশ।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত হওয়া ২৩৪ জনের মধ্যে খুলনা জেলায় ৬০ জন, বাগেরহাটে ৬ জন, চুয়াডাঙ্গায় ২০ জন, যশোরে ৬৩ জন, ঝিনাইদহ ৩৯, কুষ্টিয়া ২৭ জন, মাগুরায় ৮ জন, মেহেরপুর ৫ জন এবং সাতক্ষীরা ৬ জন রয়েছেন। এই সময়ে নড়াইলে নতুন করে কেউ শনাক্ত হননি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেওয়া হিসাবে, বিভাগে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত ১০ হাজার ৬৯৫ জনের মধ্যে ৪ হাজার ১০ জনই খুলনা জেলার। বিভাগের মোট রোগীর ৩৮ শতাংশ খুলনার। এ ছাড়া বাগেরহাটে ৫৪১ জন, চুয়াডাঙ্গায় ৫১১, যশোরে ১ হাজার ৬২৯, ঝিনাইদহে ৮০৯, কুষ্টিয়ায় ১ হাজার ৩৮০, মাগুরায় ৩৮৬, মেহেরপুরে ১৫১, নড়াইলে ৬২৫ ও সাতক্ষীরায় ৬৫৩ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। বিভাগে কোভিড–১৯ রোগে মৃতের সংখ্যা এখন ১৯৮। এর মধ্যে খুলনায় সবচেয়ে বেশি ৬৪ জন মারা গেছেন। এ ছাড়া কুষ্টিয়ায় ৩০ জন, যশোরে ২৩ জন, সাতক্ষীরায় ২০ জন, ঝিনাইদহে ১৬ জন, নড়াইলে ১১ জন, বাগেরহাটে ১০ জন, চুয়াডাঙ্গায় ৯ জন, মাগুরায় ৮ জন, মেহেরপুরে ৭ জন মারা গেছেন।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন