default-image

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘চাকরিচ্যুত’ তিন শিক্ষক বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন। রোববার তিন শিক্ষকের পক্ষে ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, সহ-উপাচার্য, রেজিস্ট্রারসহ ১০ জনকে এই নোটিশ পাঠান। নোটিশে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে শিক্ষকদের ‘চাকরিচ্যুতি’ প্রত্যাহার করতে বলা হয়েছে।

২৩ জানুয়ারি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের ২১২তম সভায় বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আবুল ফজলকে বরখাস্ত, একই বিভাগের প্রভাষক শাকিলা আলম এবং ইতিহাস ও সভ্যতা ডিসিপ্লিনের প্রভাষক হৈমন্তি শুক্লা কাবেরিকে অপসারণের সিদ্ধান্ত নেয় কর্তৃপক্ষ। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর ই-মেইলের মাধ্যমে তাঁদের চাকরিচ্যুতির চিঠি পাঠানো হয়।

শিক্ষকদের প্রতিবাদ

ওই তিন শিক্ষককে বরখাস্ত ও অপসারণের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা। রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে এই মানববন্ধন করা হয়।

বিজ্ঞাপন

শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ

তিন শিক্ষককে চাকরিচ্যুতির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবিতে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সাধারণ শিক্ষার্থীরা আলাদাভাবে প্রশাসন ভবনের সামনে মানববন্ধন করেন।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বলেন, ন্যায্য দাবি আদায়ের আন্দোলন সমর্থন করার জন্য তিন শিক্ষকের ওপর শাস্তির খড়গ নেমে এসেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের এই শাস্তি ইঙ্গিত দেয়, ভবিষ্যতে কেউ শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ালে তাঁদের বরখাস্ত করা হবে। এমন কর্তৃত্বপরায়ণ ও স্বেচ্ছাচারী মনোভাব মেনে নেওয়া হবে না।

শিক্ষার্থীরা আরও বলেন, ইতিমধ্যে সারা বাংলাদেশের ছাত্রসমাজ, শিক্ষকমণ্ডলী, সচেতন নাগরিক, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নেটওয়ার্কসহ অনেকেই ওই শিক্ষকদের জন্য আন্দোলন করছেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা প্রতিদিন দুপুর সাড়ে ১২টায় প্রতিবাদ কর্মসূচি চালিয়ে যাবেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন