default-image

ফুটবল খেলার খবর শুনলেই ছুটে যেতেন খেলা দেখতে। গতকাল শুক্রবার গিয়েছিলেন দুই বন্ধুর সঙ্গে খেলা দেখতে। বিকেলে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফেরার পথে পিকআপ ভ্যানের চাপায় আহত হন তিনি। এরপর স্বজনেরা তাঁকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। আজ শনিবার তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

মারা যাওয়া ওই যুবকের নাম রাজন মিয়া (৩০)। তিন সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের চিলাউড়া গ্রামের আবদুর নুরের ছেলে।

পুলিশ, এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, গতকাল জগন্নাথপুর উপজেলার চিলাউড়া গ্রামের রাজন, মোহন ও আবদুল হাই—এই তিন বন্ধু মিলে উপজেলার অনন্তপুর গ্রামের মাঠে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা দেখতে যান। খেলা শেষে বাড়ি ফেরার পথে পাগলা-জগন্নাথপুর-আউশকান্দি আঞ্চলিক মহাসড়কের গন্ধবপুর এলাকায় তাঁদের মোটরসাইকেলের সঙ্গে একটি টমটমের সরাসরি ধাক্কা লাগে। এতে মোটরসাইকেল থেকে তাঁরা সড়কে ছিটকে পড়েন। এ সময় একটি পিকআপ ভ্যানের চাপায় রাজন মিয়া গুরুতর আহত হন। তাৎক্ষণিকভাবে উদ্ধার করে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

রাজন মিয়ার ভাই মুন্না মিয়া জানান, পাঁচ ভাই ও তিন বোনের মধ্যে রাজন ছিল সবার ছোট ও আদরের। খেলাধুলার প্রতি ছিল তাঁর প্রচণ্ড আগ্রহ। বিশেষ করে ফুটবল খেলার খবর শুনলেই ছুটে যেতেন খেলা দেখতে। গতকাল খেলা দেখে বাড়ি ফেরার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে রাজন মারা যান।

চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আরশ মিয়া বলেন, ‘একজন ফুটবলপ্রেমী হিসেবে রাজন আমাদের কাছে পরিচিত। ফুটবল টুর্নামেন্টের খবর পেলেই সে ছুটে যেত এবং আমাদের আমন্ত্রণ জানাত। তার এমন মৃত্যুতে এলাকাবাসী শোকাহত।’

জগন্নাথপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার নিহত তরুণের লাশ ময়নাতদন্তের পর আজ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন