বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সবজি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রাত নয়টার পর থেকে মূলত প্রতিদিন অস্থায়ী বাজারটি জমে ওঠে। ক্রেতা-বিক্রেতাদের উপস্থিতিতে বাজার মুখর থাকে। রাতে ঘরমুখী মানুষই সেখানে কেনাকাটা বেশি করেন। সাধারণত রাত একটা পর্যন্ত বাজার জমজমাট থাকে। তবে এখন রমজান মাস হওয়ায় রাত দুইটা পর্যন্তও বেচাকেনা চলে। কখনো কখনো এরপরও সেখানে সবজি বিক্রি হতে দেখা যায়।

জামিল মিয়া (৩৭) নামের বন্দরবাজার এলাকার এক ব্যবসায়ী গতকাল মধ্যরাতে ওই বাজারে সবজি কিনতে আসেন। তিনি বলেন, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান চালানোর কারণে দিনে তাঁর পক্ষে কেনাকাটা করা সম্ভব হয় না। এ জন্য রাতে কেনাকাটা করেন। বাজার থেকে ঢ্যাঁড়স, আলু, শসাসহ বেশ কিছু সবজি কিনেছেন। নগরের অন্যান্য বাজারের তুলনায় এখানে কম দামে তাজা সবজি পাওয়া যায়। সবার কাছে অস্থায়ী এ বাজার দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

বাজার ঘুরে জানা গেছে, রোজার মাসে প্রায় সব নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে। তুলনামূলকভাবে এ বাজারে কম দামে সবজি পাওয়া যায় বলে এখানে ক্রেতার ভিড় বেশি। তবে রোজার শুরুর দিকের তুলনায় সবজির দাম কেজিপ্রতি ৫ থেকে ১০ টাকা কমেছে। বাজারের একাধিক ক্রেতা সবজির দাম নিয়ে সন্তুষ্ট বলে জানিয়েছেন।

বিক্রেতারা জানান, সিলেট শহরতলির আশপাশের বিভিন্ন গ্রাম থেকে চাষিদের উৎপাদিত সবজি তাঁরা সংগ্রহ করে এ বাজারে বিক্রি করেন। পাশাপাশি নগরের পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকেও তাঁরা সবজি কিনে সেখানে বিক্রি করেন। জাহিদুর রহমান নামের এক সবজি ব্যবসায়ী বলেন, ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্য, কম দামে বেশি বিক্রি করা। তাই সব ব্যবসায়ীই কম দামে পণ্য বিক্রি করেন।

default-image

নগরের বিলপাড় এলাকার বাসিন্দা সাদ উদ্দিন (৪৬) ভ্রাম্যমাণ এই বাজারে সবজি কিনতে এসেছেন। তিনি বলেন, রাতের এ বাজারের সবজি প্রকারভেদে নগরের অন্য বাজারের চেয়ে গড়ে ৫ টাকা থেকে ১৫ টাকা কম দামে পাওয়া যাচ্ছে। বাজারে নানা ধরনের তাজা শাকের আঁটি পাওয়া যায়। এসব শাক শহরতলির আশপাশের চাষিদের কাছ থেকে বিক্রেতারা সংগ্রহ করে আনেন। দামেও অনেক সস্তা।

গতকাল রাতে এ বাজারে প্রতি কেজি শসা ১৫ টাকা, টমেটো ২০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৭০ টাকা, কাঁচা আম ৩০ টাকা, আলু ১৪ টাকা, ঝিঙে ২৫ টাকা থেকে ৩০ টাকা, মুলা ১২ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। এ ছাড়া একেকটি মিষ্টি কুমড়া (বড়) ৩০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এক সপ্তাহ আগেও যে কলা ২০ টাকা হালি বিক্রি হয়েছে, এখন তা বিক্রি হচ্ছে অর্ধেক দামে। বাজার দর অনুযায়ী প্রতিদিনই সবজির দাম কমবেশি হয়ে থাকে বলে ক্রেতা ও বিক্রেতারা জানিয়েছেন।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, দিনে কিংবা রাতে কোনো অবস্থায়ই ফুটপাতে ভ্রাম্যমাণ সবজি ব্যবসায়ীদের ব্যবসা করতে দেওয়া হয় না। কারণ, তাঁরা ফুটপাত ও মূল সড়কের অনেকটা বেদখল করে রাখলে যানজট তৈরি হয়। তবে রাতে যখন যানবাহনের চাপ থাকে না, তখন অনেক ব্যবসায়ী ফুটপাতে বসে সবজি বিক্রি করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন